একবারেই চুপ আছেন পরী

চুপ আছেন পরী
চুপ আছেন পরী

নিউজ ডেস্ক: চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ মামলা ও আসামি গ্রেপ্তার নিয়ে কম হয়নি।
গত ১৩ জুন সন্ধ্যায় এক ফেসবুক পোস্টে এবং রাতে বাসায় সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন পরী। ঘটনার পরদিন সাভার থানায় মামলাও করেন আলোচিত এই নায়িকা।

পরীর ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর, সবাই এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। অনেকে পরীর পাশে থাকার সাহসও যুগিয়েছেন। পরীও বলেছেন, অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবেন, হার মানবেন না।

ওইদিনের ঘটনার সূত্র ধরে পরীর বিরুদ্ধে একের পর এক তথ্য বেরিয়ে আসছে। এরপর রাজধানীর গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাব কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করে- বোট ক্লাবের ঘটনার আগে পরী তাদের ক্লাবে অসদাচরণ ও ভাঙচুর করেছেন। পরে বনানী ক্লাবে এক তারকা দম্পতির অনুষ্ঠানেও ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে পরীর বিরুদ্ধে।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে ১০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও। ওই ভিডিওতে দেখা যায়, পরীমনি বোট ক্লাবের একটি চেয়ারে বসে মদ পান করছেন। আর ক্লাবের পরিচালনা পরিষদের সদস্য নাসির ইউ মাহমুদ পরীকে মদ পান করতে নিষেধ করছেন।

ঘটনার শুরুর দিকে সক্রিয় ভূমিকায় থাকলেও বর্তমানে একবারেই চুপ আছেন পরী। তার চুপ থাকার কারণে সিনেমাপাড়া থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষদের মনে সন্দেহের দানা বেঁধেছে।

পরীর অভিযোগের সত্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন কেউ কেউ, উঠে আসছে পাল্টা নানা অভিযোগও। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সবগুলো অভিযোগই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জানা যাচ্ছে, পরী নাকি প্রায় রাতেই তার কস্টিউম ডিজাইনার জিমিসহ কয়েকজন তরুণ-তরুণী নিয়ে অভিজাত ক্লাব ও তারকা হোটেলে ঘুরে বেড়াতেন। এদের সঙ্গে নিয়ে মদ পান করতেন মধ্যরাত পর্যন্ত। তার কারণে প্রায়ই ক্লাবের আইন ভাঙার অভিযোগ আসতো।

জানা যায়, তার কর্মকাণ্ডে অতিষ্ঠ হয়ে বিভিন্ন সামাজিক ক্লাব ও বারে নিষিদ্ধ হচ্ছেন পরীমনি। ক্লাবগুলোর কর্তৃপক্ষের মধ্যে আলোচনা হয়েছে পরীকে স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করার বিষয়ে। পরী কিংবা তার মত কাউকে ক্লাবে কোনো সদস্য নিয়ে গেলে সেই সদস্যের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শুধু তাই নয়, কোনো অনাকাংঙ্খিত ঘটনা ঘটলে সেই সদস্যের সদস্যপদও খারিজ করা হবে। ক্লাব ও বারগুলোর এ ধরণের সিদ্ধান্তকে নাকি সমর্থনও জানিয়েছেন চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, শিল্পী ও প্রদর্শকরা।

তারা জানায়, ব্যক্তি বিশেষের দায়ভার কোনোভাবেই পুরো চলচ্চিত্র জগত নিতে পারে না। পরী সিনেমার বড় ধরণের ক্ষতি সাধন করেছেন। চলচ্চিত্র জগত সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা তৈরি করেছেন। তার কারণে ক্ষতির শিকার হচ্ছেন অন্য অভিনেত্রীরাও।

উল্লেখ্য, পুরো বিষয়টি নিয়ে পরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। ফেসবুকেও এসব প্রসঙ্গ নিয়ে চুপ আছেন তিনি। জানা যায়, পরী বর্তমানে বনানীর বাসাতেই আছেন।