ডিজিটাল অপরাধ মোকাবেলায় সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে: জব্বার

ডিজিটাল অপরাধ মোকাবেলায় সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে
ডিজিটাল অপরাধ মোকাবেলায় সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে

নিউজ ডেস্ক:   ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল অপরাধ বর্তমান সময়ের একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি প্রযুক্তিবিদ, অভিভাবক ও শিক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী ঢাকায় সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের সাইবার অপরাধ বিষয়ক রিপোর্ট প্রকাশনা উপলক্ষে আয়োজিত ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ডিজিটাল অপরাধ থেকে শিশুদের নিয়ন্ত্রণ করতে বাবা-মা, শিক্ষক-অভিভাবকদের প্যারেন্টাল গাইডেন্স সম্পর্কে ধারণা থাকার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, প্যারেন্টাল গাইডেন্স এর মাধ্যমে শিশুদের ডিজিটাল অপরাধের হাত থেকে রক্ষা করা যায়। কিন্তু অভিভাবকদের এ সংক্রান্ত অজ্ঞতার কারণে এর প্রয়োগের হার খুবই কম।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্হিতিতে মোবাইল ছাড়া প্রাথমিক স্তরের একজন শিক্ষার্থীর পাঠগ্রহণ সম্ভব হচ্ছে না। শিশুটি অনলাইনে ক্লাস করা ছাড়া অনলাইনে কি করে, অভিভাকদেরই তা মনিটরিং করা দরকার।

মন্ত্রী বলেন, প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় শিল্পবিপ্লব অংশগ্রহণ না করেও আমরা কৃষিযুগ থেকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব যুগে প্রবেশ করেছি এবং এর নেতৃত্বের যোগ্যতা অর্জন করেছি। সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া ও ফ্রান্স সোস্যাল মিডিয়া এবং ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংক্রান্ত
বিষয়ে আইন প্রণয়ন করেছে।

জনাব মোস্তাফা জব্বার ডিজিটাল অপরাধ দমনে পুলিশের ডিজিটাল অপরাধ টিমের দক্ষতার প্রশংসা করে বলেন, ডিজিটাল কানেক্টিভিটি সারা দেশে সম্প্রসারিত হওয়ায় এই অপরাধ কেবল শহরকেন্দ্রিক নয়, এটি সারা দেশে ছড়িয়ে গেছে। তৃণমূল পর্যন্ত পুলিশের ডিজিটাল ইউনিট গঠন করা সময়ের দাবি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী মোস্তাফিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সাংবাদিক মনির হাসান, ইন্টারনেট গভর্নেন্স ফোরামের সেক্রেটারি আবদুল হক অনু প্রমুখ বক্তৃতা করেন।