এমপিরা বাস্তব অবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন না: হারুন

এমপিরা বাস্তব অবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন না: হারুন
এমপিরা বাস্তব অবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন না: হারুন

নিউজ ডেস্ক:    বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেছেন, একটি রাষ্ট্রের আর্থিক কাঠামোতে দৃষ্টি দিতে গেলে সেখানে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অবস্থানগুলোর প্রতি তাকাতে হবে। আমি নিঃসন্দেহে বলবো বাংলাদেশের শেয়ার বাজার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছে। সেখানে মাঝে মাঝে একটু চোখ খুলছে। আবার চোখ বন্ধ করছে। বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

বিএনপি দলীয় এই সদস্য বলেন, বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো আজকে সাংঘাতিকভাবে লুটেরাদের দ্বারা আক্রান্ত। লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি টাকা ঋণ নিচ্ছে। ঋণগ্রহীতারা ঋণ ফেরত দিচ্ছে না। তারা ঋণখেলাপি হচ্ছে না। তারা দেদারছে আনন্দ ফুর্তি করে ঘুরে বেড়াচ্ছে। যে কারণে সব ব্যাংক বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি এবং বঙ্গবন্ধু চিকিৎসক পরিষদের ডাক্তাররা চিকিৎসা দিচ্ছেন। আর অন্যান্য যে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে যেগুলো নিয়ে বাংলাদেশ নিঃসন্দেহে একটি ভয়াবহ দুর্যোগ কবলিত দেশে পরিণত হয়েছে। আইলা আক্রান্ত উপকূলীয় মানুষ যে রকম বিপর্যস্ত, সমস্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এ রকমই।

সংসদে সরকারি দলের এমপিরা বাস্তব অবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন না-এমন অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, ‘এখন রাষ্ট্র পরিচালনার কোন দলিল নাই। সংবিধানে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি বলা হচ্ছে-জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা। তিনি প্রশ্ন তোলেন- আমরা কি আর সেই জায়গায় আছি? বাংলাদেশের সিংহভাগ মানুষ মুসলমান; ৯০ ভাগ মানুষ ইসলাম ধর্মের অনুসারী। আমাদের ধর্ম কোরআন। কোরআনে ধর্মনিরপেক্ষতার কোন স্থান নাই। সুতরাং সংবিধানে একটি বড় অসঙ্গতি রয়েছে। সংবিধানে সভা-সমাবেশের কথা বলা হয়েছে। তার কি কোনো অস্তিত্ব আছে? আজকে ভিন্নমত প্রকাশের কোনো স্বাধীনতা আছে?’

তিনি বলেন, সংবিধানে দণ্ডিত আসামিকে ক্ষমা করে দেওয়ার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতিকে দেওয়া হয়েছে। এই মহাজোট সরকার আমলে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ জন খুনি দণ্ডিত আসামিকে মাফ করা হয়েছে। এটি অত্যন্ত নাড়া দিয়েছে বিশ্বকে যে কিছুদিন আগে আলজাজিরা অল প্রাইম মিনিস্টার ম্যান প্রতিবেদনটি। এতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে।