জ্বালানির দাম কমানোর দাবিতে আন্দোলনে নামছে ৫টি বামদল

জ্বালানির দাম কমানোর দাবিতে আন্দোলনে নামছে ৫টি বামদল
জ্বালানির দাম কমানোর দাবিতে আন্দোলনে নামছে ৫টি বামদল

নিউজ ডেস্ক:   জ্বালানি, অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও ওষুধের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আন্দোলনে নামছে বাম দলগুলি। ১৬ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ১৫ দিন তারা বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে দেশজুড়ে। রবিবার পাঁচটি বামদল যৌথ বিবৃতিতে একথা জানিয়েছে। বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরি, সিপিআইয়ের ডি রাজা, অল ইন্ডিয়া ফরোয়ার্ড ব্লক-এর দেবব্রত বিশ্বাস, আরএসপি-এর মনোজ ভট্টাচার্য ও সিপিআই (এমএল)-এর দীপঙ্কর ভট্টাচার্য।

বাম দলগুলির অভিযোগ, ‘‘২ মে বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকে জ্বালানির দাম ২১ গুণ বেড়েছে। জ্বালানির দাম বাড়ার কারণে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ছে। মূল্যবৃদ্ধি ১১ বছরে সর্বোচ্চ হয়েছে। এপ্রিল মাসে খাদ্যপণ্যের দাম প্রায় ৫ শতাংশ বেড়েছে। খাদ্যপণ্য খুচরো বাজারে পৌঁছানোর পর ক্রেতাদের থেকে অনেক বেশি দাম নেওয়া হচ্ছে।’’

কংগ্রেসও জ্বালানির দাম বৃদ্ধির বিরুদ্ধে দেশজুড়ে পেট্রল পাম্পগুলিতে একদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছিল। বাম দলগুলি বলেছে যে অর্থনীতি গভীর মন্দায়। রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় কালোবাজারি চলছে। জনগণের বেঁচে থাকার জন্য অত্যাবশ্যকীয় ওষুধের এই কালোবাজারি মোদী সরকারকে কঠোর ভাবে দমন করতে হবে।

সম্প্রতি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেছেন যে দীপাবলি পর্যন্ত ‘প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনা’র আওতায় গরিব মানুষকে মাসে ৫ কেজি খাদ্যশস্য দেওয়া হবে। এই ঘোষণার পরে বামেদের প্রশ্ন, শুধু ৫ কেজি চাল-গমে কী লাভ হবে? তাদের দাবি, ৫ কেজির পরিবর্তে ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি, মশলা, চা ইত্যাদি-সহ প্রতি মাসে ১০ কেজি খাদ্যশস্য বিনামূল্যে দিতে হবে। বামেদের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘মোদী সরকারকে অবিলম্বে ৬ মাস আয়কর দেয় না এমন পরিবারগুলিকে মাসে সাড়ে ৭ হাজার টাকা করে দিতে হবে।’’