করোনাকালে যেন কারো খাবারের কষ্ট না হয়: প্রধানমন্ত্রী

করোনাকালে যেন কারো খাবারের কষ্ট না হয়: প্রধানমন্ত্রী
করোনাকালে যেন কারো খাবারের কষ্ট না হয়: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:   করোনাভাইরাস মহামারির এই সময়ে যেন কারো খাবারের কষ্ট না হয়- সেদিকে সবাইকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

এজন্য খাদ্য উৎপদনে আরো বেশি মনোযোগ দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, দেশের এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদী না থাকে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে।

মঙ্গলবার পরিকল্পনা কশিনের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।  জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় এ নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। 

এনইসি চেয়ারপারসন হিসেবে বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী। করোনার পরিস্থিতিতে গণভবন থেকে অনলাইনের মাধ্যমে বৈঠকে সংযুক্ত হন তিনি।

এতে আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা এবং এনইসির বিস্তারিত তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনিও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় থেকে অনলাইনে ব্রিফিং করেন।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরাসরি জনগণের কল্যাণের সঙ্গে সম্পৃক্ত উন্নয়ন প্রকল্পকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে। বিশেষ করে করোনার কারণে এরকম জনসম্পৃক্ত অনেক প্রকল্পের কাজ সময়মতো শেষ করা সম্ভব হয়নি। এ ধরনের প্রকল্পগুলোকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে শেষ করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। কাজেই দেশের বাজারেও পণ্য সম্প্রসারিত করতে পারবে। তাতে উৎপাদন, ব্যবসা-বাণিজ্য সবই বাড়বে।’

খাতভিত্তিক গবেষণা কার্যক্রমেও গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাদের নিজেদের প্রয়োজনে গবেষণা করবে।

কৃষি মন্ত্রণালয় করবে তাদের কৃষির প্রয়োজনে। এজন্য প্রত্যেকের সেক্টরে গবেষণার জন্য আলাদা ফান্ড থাকতে হবে। বেশি বেশি গবেষণা করতে হবে।

এসময় পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।