ভারতে আটকেপড়া বাংলাদেশিরা আজ থেকে ফিরতে পারবেন

ভারতে আটকেপড়া বাংলাদেশিরা আজ থেকে ফিরতে পারবেন
ভারতে আটকেপড়া বাংলাদেশিরা আজ থেকে ফিরতে পারবেন

নিউজ ডেস্ক : আজ থেকে দিনাজপুরের হিলি চেকপোস্ট দিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন ভারতে চিকিৎসায় ও অন্যান্য প্রয়োজনে গিয়ে আটকেপড়া বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রীরা। তাদের পাসপোর্টে ভিসা থাকার পাশাপাশি কলকাতায় বাংলাদেশের উপ-হাইকমিশন থেকে এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট বা অনাপত্তিপত্র) থাকতে হবে। তারপরেই তারা দেশে প্রবেশ করতে পারবেন।

তাদের ইমিগ্রেশন, কাস্টমস এবং স্বাস্থ্য বিভাগের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তারা স্থানীয় দুইটি আবাসিক হোটেলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে। আর হোটেলে তারা নিজ খরচে অবস্থান করবেন। করোনা শনাক্তদেরকে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রাখা হবে।

জানা গেছে, রবিবার থেকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ৩০ মে পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। রাজ্য সরকার এই লকডাউন ঘোষণা করেন। লকডাউনের কারণে সেখানে ট্রেনসহ সব ধরণের যাত্রীবাহী পরিবহন বন্ধ থাকবে। যার কারণে ভারতের আটকাপড়া বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রীরা ফিরতে দুর্ভোগে পড়তে পারেন।

হিলির চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সেকেন্দার আলী জানায়, করোনার কারণে গত বছরের মার্চ থেকে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পাসপোর্টযাত্রী পারাপার পুরোপুরি বন্ধ আছে। ভারতের সরকার গত ১২ মার্চ অবস্থান করা বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রীদের দুর্ভোগ লাঘবে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাই আজ থেকে ভারতে অবস্থান করা বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রী কলকাতায় বাংলাদেশের উপ-হাইকমিশনের এনওসি নিয়ে হিলি চেকপোস্ট দিয়ে দেশে আসতে পারবেন। ওইসময় তাদের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হবে। অনেকে চিকিৎসা ও অন্যান্য প্রয়োজনে ভারতে গিয়ে আটকা পড়েন।

আরও জানায়, শুধুমাত্র ভারতে অবস্থান করা বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রীরা দেশে ফিরতে পারবেন। কিন্তু বাংলাদেশি কোন পাসপোর্টযাত্রী বা বাংলাদেশে অবস্থান করা ভারতীয় কোন পাসপোর্টযাত্রী ভারতে প্রবেশ করতে পারবেন না।

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। ভারতীয় ট্রাকগুলো আমদানিকৃত পণ্য নিয়ে বন্দরে প্রবেশের পর জীবাণুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে এবং ট্রাকের চালককেও স্যানিটাইজ করা হচ্ছে। চালকরা যাতে বন্দরের বাইরে যেতে না পারেন সেজন্য পানামা পোর্ট কর্তৃপক্ষ নজরদারি রাখা হচ্ছে।