ফসলী জমি নিয়ে বিরোধ পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন

ফসলী জমি নিয়ে বিরোধ পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন
ফসলী জমি নিয়ে বিরোধ পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন

দুর্গাপুর(নেত্রকোনা) প্রতিনিধি: জেলার দুর্গাপুর উপজেলার গাঁওকান্দিয়া ইউনিয়নের মুন্সিপাড়া গ্রামের মোঃ জলিল তালুকদার ও তার স্ত্রী মোছাঃ আনোয়ারা বেগমের পক্ষে তাদের ছেলে মোঃ আশরাফ হোসেন শাহীন একই গ্রামের বাসিন্দা মৃত উসমান গনির পুত্র মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন হারুন ও তৎ ভ্রাতাগণের দ্বারা ৭ একর ৮ শতক জমির পাকা ধান জোড়পূর্বক কেটে নিয়ে যাওয়া ও বেদখল করার অভিযোগে গত ৫ মে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিভিন্ন পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত হয় সেই সংবাদের প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন মৃত উসমান গনির পুত্র মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন হারুন।

বুধবার স্থানীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে মৃত- উসমান গণির পুত্র মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন হারুন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার বাবা জীবিত অবস্থায় ২৬ বছর
পূর্বে ১৯৯৫ সনে উক্ত ৭ একর ৮ শতক জমি শাহীনের পিতা মাতার নিকট থেকে আমাদের চার ভ্রাতার নামে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকায় আমিসহ আমার অপর তিন ভ্রাতা বরাবরে বিক্রয় করিয়া নিঃস্বত্ববান হন।

উক্ত বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিগন ও অবগত আছেন। কিন্তু উক্ত ভুমি সাবকবলা রেজিষ্ট্রির কার্য সম্পন্ন করা হয় নাই। উক্ত ভুমিতে ইতিপূর্বে সংবাদ সম্মেলনকারী আশরাফ হোসেন শাহীনগংদের আদৌ কোন স্বত্ব দখল নাই। উক্ত ভুমি বাবদ স্বস্ত স্বাব্যস্থ পূর্বক দখল স্থীরতির ও স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনায় আমরা উপরোক্ত চারভাই বাদী হইয়া আশরাফ হোসেন
শাহীন সহ তৎ ভাই বোন ও মাতার বিরুদ্ধে নেত্রকোনাস্থ বিজ্ঞ জেলা জজ ২য়  আদালতে ২০৩/২০২০ নং স্বত্ব মোকাদ্দমা আনয়ন করিয়াছি।

যাহা বর্তমানে বিচারাধীণ। বর্তমানে ইরি বোর মৌসুমে আমরা উক্ত ভুমিতে বি আর-২৮ ও
হাইব্রীড ধান্য আবাদ করিয়াছিলাম এবং আমাদের অর্জিত ধান্য ফসল কাটার উপযোগী হইলে ইতিমধ্যে নিস্কন্টভাবে আমরা আমাদের অর্জিত ধান্য ফসল কাটিয়া আনিয়াছি। বিগত তারিখে শাহীন প্রকৃত তথ্য গোপন করিয়া সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিভিন্ন পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত হয় তা সম্পূর্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই।

এ ছাড়া অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শাহজাহান মেম্বার, রফিক মেম্বার, মোঃ সুরুজ ফরাজী, মাওলানাআব্দুল্লাহ্ ; আল মামুন, ফয়েজুর রহমান বাবুল, উজ্জ্বল মিয়া প্রমুখ।