জীবন ও জীবিকা গুরুত্ব পাবে এবারের বাজেটে

জীবন ও জীবিকা গুরুত্ব পাবে এবারের বাজেটে
জীবন ও জীবিকা গুরুত্ব পাবে এবারের বাজেটে

নিউজ ডেস্ক : আগামী বাজেটে জীবন ও জীবিকাকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে । মহামারি করোনা থেকে জীবন বাঁচাতে যেমন উদ্যোগ থাকছে, তেমনি জীবিকা রক্ষায় থাকছে নানান প্রণোদনা। তাই আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতার শিরোনাম করা হয়েছে ‘জীবন জীবিকার প্রাধান্য ও আগামীর বাংলাদেশ’।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আগামী ৩ জুন জাতীয় সংসদে বাজেট উপস্থাপন করবেন। আগের দিন ২ জুন জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হবে।

মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এক বিশেষ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আগামী অর্থবছরের জন্য যে বাজেট পরিকল্পনা সাজানো হয়েছে তার সারমর্ম তুলে ধরেন । বাজেট বক্তৃতার সম্ভাব্য চারটি শিরোনাম ছিল।

সভায় ‘জীবন জীবিকার প্রাধান্য ও আগামীর বাংলাদেশ’কে বাজেট বক্তৃতার শিরোনাম হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য খাতকে জীবন বাঁচাতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জন্য স্বাস্থ্য খাতের ১৭ হাজার কোটি টাকার বেশি বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। করোনার টিকা কেনা, টিকাদান, ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ বাবদ বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।

আগামী অর্থবছরে সরকার ১০ কোটি মানুষকে টিকা দিতে চায়। এসব মিলিয়ে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ অনেক বাড়ানো হচ্ছে। আবার জীবিকা ঠিক রাখতে কৃষি ও শিল্পোৎপাদন বাড়ানো ও সেবা খাতের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার উদ্যোগ থাকছে। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় অসহায়, দুস্থ মানুষকে আনা হচ্ছে ।

নগদ সহায়তা দেবে সরকার পরিবহন শ্রমিকদের : করোনার বিস্তার রোধে চলমান লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া সড়ক ও নৌ পরিবহন খাতের শ্রমিকদের ২ হাজার ৫০০ টাকা করে নগদ সহায়তা দেবে সরকার। অর্থ মন্ত্রণালয় জেলা প্রশাসকদের কাছে পরিবহন শ্রমিকদের তালিকা চেয়েছে ।

জানা গেছে, সম্প্রতি লকডাউনের শুরু থেকে দূরপাল্লার গণপরিবহনসহ লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। যারকারণে যানবাহনে কর্মরত ড্রাইভার, হেলপার ও সুপারভাইজারদের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সড়ক ও নৌ খাতের পরিবহন শ্রমিকদের নগদ সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে নগদ সহায়তা দেওয়া হয়েছে গত বছর এবং এ বছর ৩৫ লাখ কর্মহীন দরিদ্রকে ২ হাজার ৫০০ টাকা করে । ওই সহায়তায় ৩৫ লাখের মধ্যে পরিবহন শ্রমিকরাও রয়েছেন। ওদের ছাড়া বাকি পরিবহন শ্রমিকদের তালিকা জেলা প্রশাসকদের কাছে চাওয়া হয়েছে। এই তালিকার সকলকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে এ সহায়তা দেওয়া হবে।

করোনা মোকাবিলায় থোক বরাদ্দ থাকা ১০ হাজার কোটি টাকার তহবিল থেকে ব্যয় করার প্রস্তাব রয়েছে।