রিয়াল মাদ্রিদ সেভিয়ার সাথে ড্র করে পয়েন্ট হারালো

রিয়াল মাদ্রিদ সেভিয়ার সাথে ড্র করে পয়েন্ট হারালো
রিয়াল মাদ্রিদ সেভিয়ার সাথে ড্র করে পয়েন্ট হারালো

নিউজ ডেস্ক : রিয়াল মাদ্রিদ এডেন হ্যাজার্ডের ৯৪ মিনিটের গোলে সেভিয়ার বিপক্ষে নাটকীয় ম্যাচে কোনমতে ২-২ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে । এই ড্রয়ে লা লিগা টেবিলের শীর্ষে থাকা এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের শিরোপা নিশ্চিতের পথ আরো কিছুটা শক্তিশালী হলো।

ফার্নান্দোর গোলে ম্যাচের ২২ মিনিটে সেভিয়া এগিয়ে যাবার পর দ্বিতীয়ার্ধের মাঝামাঝিতে মার্কো আসেনসিওর গোলে সমতায় ফিরেছিল জিনেদিন জিদানের দল। সেভিয়ার গোলরক্ষক ইয়াসিন বোনোর বিপক্ষে করিম বেনজেমা একটি পেনাল্টি আদায় করে নিলেও ভিএআর প্রযুক্তি নিশ্চিত করে তার কিছুক্ষন আগেই নিজেদের ডি বক্সের ভিতর এডার মিলিটাওয়ের হাতে বল লেগেছে।
মাদ্রিদের পেনাল্টির সিদ্ধান্ত বাতিল করে উল্টো সেভিয়াকে স্পট-কিক উপহার দেয়া হয়। ৭৮ মিনিটে আবারো সেভিয়াকে এগিয়ে দেন ইভান রাকিটিচ। ইনজুরি যদিও টাইমে টনি ক্রুসের সহায়তায় হ্যাজার্ড দলকে এক পয়েন্ট উপহার দেন।

জিদান ম্যাচ শেষে বলেছেন, আমাদের এখন পরবর্তী ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করেত হবে। এখন পুরো বিষয়টি শুধুমাত্র আমাদের উপর নির্ভরশীল নয়। কিন্তু তারপরেও আমাদের শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।

ক্যাম্প ন্যুতে রোববার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বার্সেলোনা ও এ্যাথলেটিকো গোলশুন্য ড্র করায় সপ্তাহের দ্বিতীয় বিগ ম্যাচটিও কোন ফলাফল ছাড়াই নিষ্পত্তি হলো। এটি হচ্ছে শীর্ষ তিনের অবস্থানের কোন পরিবর্তন হলোনা, প্রত্যেকেরই হাতে রয়েছে আর মাত্র তিনটি করে ম্যাচ।

এ্যাথলেটিকো রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা উভয় দলের থেকেই দুই পয়েন্ট এগিয়ে টেবিলের শীর্ষস্থানটি ধরে রেখেছে । আর এই মুহূর্ত বলা যেতেই পারে শিরোপা জয়ের পথেও তারাই সুস্পষ্ট ফেবারিট।

জয়ী হতে পারলে সেভিয়ার তাদের সামনেও শিরোপা জয়ের প্রচ্ছন্ন একটি সুযোগ থাকতো। দলটির ছয় পয়েন্ট পিছিয়ে থাকায় চতুর্থ স্থানে এখন আর সেই সুযোগ নেই বললেই চলে।

সেভিয়া কোচ জুলেন লোপেতেগুই বলেছেন, ‘আমরা খুবই হতাশ। কিন্তু তারপরেও আমরা ছেড়ে দেবনা। শেষ পর্যন্ত আমরা এই স্বপ্ন টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করবো।’

লুকা মড্রিচ বলেছেন, ‘এটা খুবই লজ্জার। কিন্তু এখনো আমরা টিকে রয়েছি। আমাদের এখন অন্য দলগুলোর পয়েন্ট হারানোর অপেক্ষায় থাকতে হবে।’

চেলসির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বিদায় নেবার পর বিতকির্ত আচরণের দায়ে হ্যাজার্ডকে কাল মূল একাদশের বাইরে রেখেছিলেন জিদান। কিন্তু বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে এসে শেষ পর্যন্ত এই বেলজিয়ান অধিনায়কের গোলেই রক্ষা পেল মাদ্রিদ।

সেভিয়া প্রথম ১০ মিনিট ৭৫ শতাংশ বল নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রেখেছিল । কিন্তু রিয়ালও নিজেদের অর্ধে রক্ষণভাগ ঠিক রেখে ধীরে ধীরে ম্যাচের নিয়ন্ত্রন আয়ত্ব করেছে। প্রথম আক্রমনেই গোল পেয়ে গিয়েছিল মাদ্রিদ। বেনজেমার হেডে গোলে হলেও আলভারো
ওড্রিওজোলার অফসাইডের কারনে তা বাতিল হয়ে যায়। 

মড্রিচের পরিবর্তে মাঠে নামার ৬৫ সেকেন্ডের মধ্যেই গোল করেছিলেন আসেনসিও। ৭৮ মিনিটে সেভিয়ার কর্ণার ক্লিয়ার হবার পর বেনজেমা বল নিয়ে একাই প্রতিপক্ষের এরিয়ার ঢুকে যান। বোনো বেনজেমাকে ফাউল করলে নিশ্চিত পেনাল্টি পায় মাদ্রিদ। কিন্তু রেফারি মার্টিনেজ দ্রুতই মনিটরে পুরো ঘটনাটি পর্যবেক্ষন করে দেখতে পান সেভিয়ার কর্ণারটি ক্লিয়ার হবার আগে মিলিটাওয়ের হাতে স্পষ্টভাবে বলটি লেগেছে।

উভয় দলই এই ঘটনায় মার্টিনেজের কাছে নিজেদের আপত্তির কথা জানিয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেভিয়াকে পেনাল্টি উপহার দেয়া হয়। স্পট কিক থেকে রাকিটিচ কোন ভুল করেননি। ম্যাচের নাটকীয়তা তখনো বাকি ছিল। ৯৪ মিনিটে ক্রুসের এসিস্টে হ্যাজার্ড দারুন এক গোলে রিয়ালকে রক্ষা করেন। ম্যাচ শেষের দুই মিনিট কাসেমিরোর শট অল্পের জন্য বাইরে চলে না গেলে ম্যাচের ভাগ্য হয়ত ভিন্ন হতে পারতো।