কুমিল্লায় বিপনী বিতানগুলো সেজেছে ঈদ পোশাকে

কুমিল্লায় বিপনী বিতানগুলো সেজেছে ঈদ পোশাকে
কুমিল্লায় বিপনী বিতানগুলো সেজেছে ঈদ পোশাকে

মশিউর রহমান সেলিম, লাকসাম প্রতিনিধি : মহামারী করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ কঠোর লকডাউন চলাকালে আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে কুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চলের শহর থেকে গ্রামাঞ্চলের বিপনী বিতানগুলো নতুন সাজে সেজেছে নানাহ ব্র্যান্ডের বাহারী ঈদ পোশাকে। কঠোর লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে অস্থির কেনাকাটায় পন্যের বাজার ।

মহামারী করোনা যেনো জনতার ঢলের কাছে হার মেনেছে। স্থানীয় প্রশাসন কঠোর লকডাউন ও স্বাস্থবিধি মানতে নানাহ কৌশলে মানুষকে সচেতন করতে আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ক্রেতাদের একাধিক সূত্র জানায়, মহামারী করোনার আতংক এবং রমজানের মাঝামাঝি সময় থেকে প্রতিবছরের মতো এবারও এ অঞ্চলের সবক’টি বিপনী বিতাণে জমে উঠেছে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে নানাহ শ্রেণির ক্রেতাদের সমাগম। দেশীয় পোশাকের চাইতে বিদেশী হরেকরকম ব্র্যান্ডের বাহারী পোশাকে প্রতিটি দোকানে সয়লাব আর ধীরে ধীরে ক্রেতার সংখ্যাও বাড়ছে।

বিপনী বিতাণগুলোতে কটন, খাদি, ভাটিকা, বেক্সি ফেব্রিক্স, সিল্কসহ দেশি-বিদেশী নানাহ নকশা ও কারুকাজের তৈরী পোশাকের পাশাপাশি ভীন দেশীয় থ্রিপিচ-বাহুবলি-১, বাহুবলি-২, সর্বমঙ্গলা, সরোজা ও হুররামসহ একাধিক নামের পোশাকের কদর বেশি ক্রেতাদের। তারপরও মহামারী করোনাসহ নানাহ প্রতিকুলতায় ভালো ব্যবসার আশায় নতুন নতুন ডিজাইনের বাহারী পোশাকে বিপনী বিতানগুলোর দোকানগুলোতে সাজানো হয়েছে।

আরও জানায়, চলমান লক ডাউনের কারনে নানাহ অজুহাতে এলাকার কোন কোন বিপনী বিতানে গত বছর চেয়ে এবার সবচেয়ে দামবেশি ধরা হয়েছে দেশীয় নানাহ বাহারী পোশাকের। বিশেষ করে শিশু কিশোরদের পাঞ্চাবী, ফতুয়া, থ্রিপিচ, বড়দের পাঞ্জাবী, থ্রিপিচ, টুপিচ, শাড়ী কাপড় বেশি কিনছে ক্রেতারা।

এছাড়া ভারত সীমান্তের চোরা দরজাগুলো দিয়ে প্রকাশ্যে চোরাপথে আসা এ অঞ্চলের হাট-বাজার বিভিন্ন ভারতীয় পণ্যে সয়লাব হয়ে বেচাকেনায় প্রস্তুত দোকানীরা। এমনিতে জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে বড় ধরনের ঝুঁকিতে রয়েছে এ অঞ্চল। ফলে এলাকায় খরা, তাপদাহ, ঘুর্নিঝড়ের আশংকা লেগেই আছে। তাই বিভিন্ন পন্য উৎপাদনে অনেকটা ভাটা পড়েছে বলে ব্যবসায়ীদের একাধিক সূত্র জানায়।

এ ব্যাপারে লাকসাম দৌলতগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির একাধিক ব্যবসায়ী নেতা জানায়, এ অঞ্চলের সকল শ্রেণির ব্যবসায়ীরা প্রকৃতি ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার উপর অনেকটাই নির্ভরশীল। বর্তমান মহামারী করোনা গ্রামীণ অর্থনীতি ঝুঁকিতে পড়ায় ধারদেনা ও ব্যাংক ঋণ নিয়ে মালামাল তুলতে হয়েছে। বিক্রি কিছুটা শুরু হলেও এখনও ভালো ভাবে জমে উঠেনি। তবে আগামী ২/১ দিনের মধ্যে ক্রেতা সমাগম ও বেচাকেনা বাড়বে বলে প্রতিক্ষায় আছি।