বাড়িতে বসে বিস্কুট পাচ্ছে শিক্ষার্থী

বাড়িতেই বসে বিস্কুট পাচ্ছে শিক্ষার্থী
বাড়িতেই বসে বিস্কুট পাচ্ছে শিক্ষার্থী

নিউজ ডেস্ক : যশোরে করোনার মধ্যে বাড়িতে বসে সরকারের উপহার পুষ্টিকর বিস্কুট পেতে যাচ্ছে জেলার ৩ উপজেলার ১ লাখ ১৩ হাজার ৫২ শিক্ষার্থী। বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হবে ৩৪ লাখ ২৩ হাজার ৫৬২ প্যাকেট বিস্কুট।

আরআরএফ দারিদ্র্য পীড়িত এলাকায় স্কুল ফিডিং কর্মসূচির আওতায় সদর ও চৌগাছা উপজেলায় ৮২ হাজার ৩৫০ শিক্ষার্থীর বাড়িতে মার্চ ও এপ্রিল মাসের বিস্কুট পৌঁছে দেবে । উত্তরণ বিস্কুট পৌঁছে দেবে ঝিকরগাছা উপজেলার ৩০ হাজার ৭০২ শিক্ষার্থীর বাড়িতে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার থেকে সদর ও চৌগাছায় ও ২ মে ঝিকরগাছায় বিস্কুট বিতরণের কাজ শুরু করা হবে।

আরআরএফ এর প্রকল্প সমন্বয়কারী আব্দুল আজিজ জানান, জেলার ২৫৬ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫৭ হাজার ৯৭৪ শিক্ষার্থীর বাড়িতে বিস্কুট পৌছে দেয়া হবে। বিস্কুট প্রতি শিক্ষার্থী পাবে ৩০ প্যাকেট করে। ৫৭ হাজার ৯৭৪ শিক্ষার্থীর বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হবে ১৭ লাখ ৩৯ হাজার ২২০ প্যাকেট।

উপজেলার চৌগাছায় ১৪০ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর বাড়িতে বিস্কুট পৌঁছে দেয়া হবে। এ উপজেলায় ২৪ হাজার ৩৭৬ শিক্ষার্থীর বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হবে ৭ লাখ ৩১ হাজার ৫৮০ প্যাকেট বিস্কুট।

আগামী ১০ মের মধ্যে বিস্কুট পৌঁছে দেয়ার কাজ শেষ করা হবে। এদিকে ঝিকরগাছা উপজেলায় ১৩১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ২টি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা বাড়িতে বসে পাবে ৩১ প্যাকেট বিস্কুট।

উত্তরণের উদ্যোগে এ উপজেলায় ৩০ হাজার ৭০২ শিক্ষার্থীর বাড়িতে ৯ লাখ ৫১ হাজার ৭৬২ প্যাকেট বিস্কুট পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানান প্রকল্প সমন্বয়কারী নিজামুল ইসলাম। আগামী ২ মে রোববার থেকে বিস্কুট বিতরণের কাজ শুরু করা হবে বলে তিনি জানান।

যশোর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শেখ অহিদুল আলম জানান, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ বৃদ্ধি পাওয়ায় রমজান মাসে বিস্কুট দেয়াটা শিক্ষার্থীদের জন্য সরকারের উপহার। যাতে তারা এ বিস্কুট পেয়ে উৎসাহে লেখাপড়া করে। এতে করে বাড়িতে বসে বিস্কুটের মাধ্যমে তাদের পুষ্টির ঘাটতি পূরণ হবে।
সুত্র : বাসস