শ্রীমঙ্গলে ভেজাল পণ্য তৈরীর কারখানায় পুলিশের অভিযান

শ্রীমঙ্গলে ভেজাল পণ্য তৈরীর কারখানায় পুলিশের অভিযান
শ্রীমঙ্গলে ভেজাল পণ্য তৈরীর কারখানায় পুলিশের অভিযান

মো.জহিরুল ইসলাম, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল শহরের ভানুগাছ রোডস্থ নিউ শরিফ বোর্ডিং এর পিছনে জৈনক আব্দুল্লাহর বাসায় একটি নকল পন্যসামগ্রীর কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন নামি দামী ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ নকল পণ্য ও পণ্য তৈরির ক্যামিকেল উদ্ধার এবং সন্দেহ মূলক একজনসহ ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল রাত ৯ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত পুলিশ দুটি নকল পন্যসামগ্রীর কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন নামি দামী ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ নকল পণ্য ও পণ্য তৈরির ক্যামিকেল উদ্ধার করে ।

সরেজমিনে দেখা যায়, বাজারে বহুল প্রচলিত দেশি বিদেশী পণ্যের আদলে নকল পণ্য তৈরি করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে শ্রীমঙ্গলে এইসব নকল পণ্য তৈরী করে বাজারজাত করছে এই চক্রটি। এর মধ্যে রয়েছে ভারতীয় বিভিন্ন ব্রান্ডের, আতর, সেন্ট, আগরবাতি, সরিষা তেল, শ্যাম্পু গোলাপজল, ক্রীম, প্যারাসুট নারিকেল তৈল, প্রসাধনী সামগ্রী ও করোনায় ব্যবহৃত হোমিওপ্যাথিক ঔষধ,ওরস্যালাইন, শিশুদের খাবার ও তৈরী করা হতো এই মিনি কারখানা দুটিতে।

অভিযানের সময় অপর রুমে আগরবাতি তেল শ্যাম্পু গোলাপজল বানানোর একটি মিনি ফ্যাক্টরির মালিককে পাওয়া যায়নি তার নাম আব্দুল মালেক বাড়ী শহরের মুসলিমবাগ এলাকায়। জানা গেছে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কয়েকজন পালিয়ে গেছে।এসময় দুইজন নারী কর্মচারি ও ২ শিশুকে সেখানে অবস্থান করতে দেখা যায়।

আব্দুল মালেক তার শ্যালক হচ্ছে আটককৃত হাবিবুর রহমান তারা দুজনই দুটি নকল ব্যান্ড্রের মিনি কারখানা চালায়, দুলাভাই ভারতীয় বিভিন্ন ব্রান্ডের,আতর, সেন্ট, আগরবাতি বানাতো আর শ্যালক হাবিবুর রহমান বেলী প্যারাসুট তেল, সরিষার তেল বানাত।

একই সময় ভেজাল পণ্য উৎপাদনকারী আরেক মিনি কারখানার মালিক মোঃ হাবিবুর রহমানকে আটক করা হয়। তার বাড়ি চাঁদপুর জেলার হাজীপুর উপজেলায়। আটক হাবিবুর রহমানকে নকল পণ্য তৈরি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে আংশিক স্বীকার করে বলেন, আগে নকল তেলসহ কিছু পণ্য তৈরি করতাম তবে কিছু দিন আগে দুই পুলিশ এসে নিষেধ করার পর থেকে এই গুলো আর তৈরি করেন না,কারণ বর্তমানে তার পুঁজির অভাব।

অভিযান পরিচালনা করাকালীন সময়ে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি (তদন্ত) হুমায়ুন কবির বলেন,আমরা গোপন সংবাদের সুত্রে তাদের এই নকল কারখানার সন্ধান পেয়ে দ্রুত হানা দেয়, উদ্ধার করা সকল মালামালের তালিকা করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযানে ওসি (অপারেশন) নয়ন কারকুন,এস আই আলমগীর,এএসআই বাগছি ওএ এসআই কামরুল, এএসআই নজরুলসহ পুলিশের একটি টিম। তা ছাড়া স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মিরা উপস্থিত ছিলেন। ভেজাল পণ্য বানানোর কারখানার মালিক হাবিবুর রহমান আটক ।