করোনাকালে ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে: সিআইডি

করোনাকালে ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে: সিআইডি
করোনাকালে ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে: সিআইডি

নিউজ ডেস্ক:  করোনাকালে ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। বুধবার দুপুরে সিআইডির সদর দপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি মো. ইমাম হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে। এ ধরনের ধর্ষকরা ভিকটিমকে নিজেদের আখড়ায় নিয়ে ধর্ষণ করে। যাতে কোনো ঝুঁকি থাকে না। এসব গ্রুপে তিন থেকে চারজন থাকে।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তাধর বলেন, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি। গত ৪ এপ্রিল সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে মুকসুদপুরের কদমপুর গ্রামের পাথরাইল কালিদার দিঘির পাড় এলাকায় তিন আসামি ফাঁকা বাড়িতে প্রবেশ করে। তারা ঘরের সামনে থেকে মেয়েলি কণ্ঠে ডাক দিয়ে কৌশলে দরজা খুলে ঘরে ঢুকে পড়ে। এ সময় তারা দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। তারা গৃহবধূর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও নয় হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

এ ঘটনায় মুকসুদপুর থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা হয়। আসামিরা হলেন- হেমায়েত শেখ, ইয়াছিন মোল্লা ও বশির শেখ। পরে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তাধরের নির্দেশনায় ২০ এপ্রিল রাতে নওগাঁওয়ের নজিপুর এলাকা থেকে আসামি ইয়াছিন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ইয়াছিন জিজ্ঞাসাবাদে তার সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় সিআইডি।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুক্তাধর এবং জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক উপস্থিত ছিলেন।