রাজধানীতে দুই গৃহশ্রমিকের লাশ উদ্ধারের পর উদ্বেগ

রাজধানীতে দুই গৃহশ্রমিকের লাশ উদ্ধারের পর উদ্বেগ
রাজধানীতে দুই গৃহশ্রমিকের লাশ উদ্ধারের পর উদ্বেগ

নিউজ ডেস্ক : রাজধানীতে পিলখানার ভেতরে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজের কাছ থেকে লাইলি বেগম (১৬) এবং সিদ্ধেশরীতে জামেনা বেগম (১৯) নামের গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, লাইলি বেগম পিলখানার ভেতরে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজের শিক্ষিকা ফারজানা ইসলামের বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

নিহতের চোখ, মুখ, কোমর, হাঁটুসহ পায়ের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত, পোড়া, ঝলসানো আঘাত ও নির্যাতনের চিহ্ন রয়েছে। অপরদিকে গৃহকর্মী জামেনা সিদ্ধেশরীর একটি ফ্ল্যাটে কাজ করতেন। তিনি যে ঘরে ঘুমাতেন, সেই ঘরে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিল তার লাশ। নেটওয়ার্ক এ দুটি ঘটনার প্রকৃত কারণ উদঘাটন করে দায়ী ব্যক্তিদের বিচার করে এ ধরনের ঘটনা বন্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকার ও প্রশাসনের প্রতি আহবান জানাচ্ছে।

বর্তমান গৃহকর্মে নিযুক্ত শ্রমিকের উপর নির্যাতন, হত্যা, ও মানবাধিকার লংঘনের মতো প্রভৃতি ঘটনা উদ্বেগজনক ভাবে বেড়ে গেছে। গৃহশ্রমিক হিসেবে যেমন তাদের রয়েছে কিছু ন্যায্য অধিকার তেমনি রয়েছে মানুষ হিসাবে মর্যাদা পাবার অধিকার। এই করোনাকালীন সময়ে গৃহশ্রমিকরা সরকারি ও বেসরকারি পর্যায় থেকে তেমন কোন সাহায্য বা সহযোগিতা পায় নি এবং তাদের একটা বড় অংশই চাকুরিচ্যুত এবং কর্মহীন। ফলে তাদের বেঁচে থাকাটাই এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। এইরকম পরিস্থিতিতে তাদের উপর এই ধরনের সহিংসতার ও নির্যাতনের ঘটনা অমানবিকতার চরম নিদর্শন। এই ঘটনায় দায়ী ব্যক্তিকে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছে গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক।

গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক মনে করছে, সরকার ঘোষিত ‘গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতি ২০১৫’ বাস্তবায়ন না হওয়ায় দেশে একের পর এক অনাকাঙ্খিত কারণে গৃহশ্রমিকের মৃত্যু ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে।