সিএনএনের ল্যারি কিং আর নেই

ল্যারি কিং

সুমন দত্ত: প্রখ্যাত টিভি সাংবাদিক ল্যারি কিং করোনায় আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। তিনি দীর্ঘ সময় আমেরিকার সিএনএন টিভি চ্যানেলে টক শো আয়োজন করেছেন। আমেরিকার এমন কোনা তারকা নেই যার মুখোমুখি হোননি ল্যারি কিং।

স্থানীয় সময় শনিবার সকালে ল্যারি কিংয়ের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে তার ছেলে চান্স। গত ২ জানুয়ারি করোনা আক্রান্ত হয়ে লস অ্যাঞ্জেলসের সিডার সিনাই মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি হয়েছিলেন ল্যারি কিং।

৮৭ বছর বয়সে ল্যারি কিংয়ের শরীরের উপর দিয়ে কম ঝড় যায়নি। ২০১৯ সালে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে হাটা চলার ক্ষমতা হারান। বা পা অচল হয়ে পড়ে। ১৯৮৮ সালে হার্ট অ্যাটাক হয় ল্যারি কিংয়ের। তখন তার বাইপাস সার্জারি হয়। ধূমপান ছেড়ে দেন। ২০১৭ সালে ফুসফুসের ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সার্জারি করে বেচে যান। ১৯৯৯ সালে প্রোস্টেট ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিল। সেই ব্যাধিকেও পরাজিত করেন তিনি।

পেজ সিক্স কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমারে ৮৬ বছর বয়স হলেও আমি নিজেকে কখনও বৃদ্ধ ভাবিনি। আমার বাবা ৪৩-৪৪ বছর বয়সে মারা গেছে। আমি মনে করতাম আমিও মারা যেতে পারি । জীবন নিয়ে আমার কোনো ক্ষোভ নেই। আমি এ জীবন পেয়ে কৃতজ্ঞ। আমার কোনো অভিযোগ নেই।

ব্যক্তি জীবনে ৮ বার বিয়ে করেছেন ল্যারি কিং। তার সাবেক স্ত্রীর সংখ্যা ৭ জন। তাদের ঘরে ল্যারি কিংয়ের ৫ ছেলে মেয়ে আছে। তার মধ্যে এ বছর জুলাই ও আগস্ট মাসে তার দুই সন্তান এক সপ্তাহের ব্যবধানে মারা যায়। জীবিত আছে তার তিন ছেলে ল্যারি,চান্স ও ক্যানোন।