নৌপথে নাব্যতা বৃদ্ধি ও টেকসই ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

নৌপথে নাব্যতা বৃদ্ধি করে টেকসই ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী
নৌপথে নাব্যতা বৃদ্ধি করে টেকসই ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: দেশের দক্ষিণাঞ্চলে পরিবহনের প্রধান মাধ্যম নৌপথ। মোংলা বন্দরের ব্যবহার উত্তরোত্তর বৃদ্ধি এবং পায়রা বন্দরের উন্নয়নের কারণে এ অঞ্চলটির নৌপথ ব্যবহারে নদীসমূহের গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। বরিশাল বিভাগের ৩১টি নৌপথের নাব্যতা এবং অন্যান্য সুবিধা বৃদ্ধি করে টেকসই ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে। শুধু ঢাকা নয়, পর্যায়ক্রমে দেশের সব নদী অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে মুক্ত করা হবে।  বরিশাল সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আয়োজিত ‘বরিশাল বিভাগের নদীসমূহের নাব্যতা বৃদ্ধি, জলাবদ্ধতা হ্রাস, জলাভূমি বাস্তু পুনরুদ্ধার, সেচ ও ল্যান্ডিং সুবিধাদি বৃদ্ধি করে নদী ব্যবস্থাপনার সম্ভাব্যতা যাচাই’ শীর্ষক সমীক্ষা কর্মশালায় প্রধান নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্‌মুদ চৌধুরী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন হলে দেশের দ্বিতীয় নদী বন্দর বরিশালের সাথে নৌপথে যাত্রী ও মালামাল পরিবহন ব্যবস্থা সাশ্রয়ী, জনবান্ধব ও নিরাপদ হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দক্ষিণবঙ্গের মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নসহ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করব।

বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার ড. অমিতাভ সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ্, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, বিআইডব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম তালুকদার ও বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার।