প্রকল্প প্রণয়ণের সময় কৃষিকে অগ্রাধিকার দিতে হবে: পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী

প্রকল্প প্রণয়ণের সময় কৃষিকে অগ্রাধিকার দিতে হবে: পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী
প্রকল্প প্রণয়ণের সময় কৃষিকে অগ্রাধিকার দিতে হবে: পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:  পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় প্রকল্প প্রণয়নের সময় দূর্ঘম ও প্রত্যান্ত এলাকায় যেতে হবে। এক জায়গার একাধিক সংস্থা যেন প্রকল্প না নেয় তা নিশ্তিত করতে সমন্বয় করতে হবে। বাস্তবায়িত প্রকল্প হতে জনগণ য়েন দীর্ঘমেয়াদী উপকার পায় সেটা বিবেচনা করে প্রকল্প নিতে হবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি(এডিপি) বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় বক্তৃতাকালে বীর বাহাদুর উশৈসিং মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসময় মন্ত্রী আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে প্রকল্প প্রণয়ণের সময় কৃষিকে অগ্রাধিকার দিতে হবে, যাতে করে পার্বত্য এলাকার চাষযোগ্য কোনো কৃষি জমি অনাবাদী না থাকে।পার্বত্য এলাকার কৃষকদের উন্নত জাতের ফল ও উচ্চ মূল্যের বিভিন্ন সমল্লা উৎপাদনের আগ্রহ রয়েছে, কিন্তু তাদের সেই সার্মথ্য নাই। এসব কৃষকদের কথা বিবেচনা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের মিশ্র ফল চাষ ও উচ্চ মূল্যের মসল্লা চাষের প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। 

বীর বাহাদুর আরো বলেন, প্রকল্পের কাজের স্বচ্চতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে হবে। প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধির বিষয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসনের কথা মনে করিয়ে বলেন, কোনো প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হবে না। নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করতে প্রকল্প পরিচালকদের নির্দেশনা দেন তিনি। এসময় তিনি আরো বলেন, ভালো কাজের জন্য পুরস্কার দেওয়া হবে, তেমনি কাজ খারাপ করলে তিরস্কার ও শাস্তি দেওয়া হবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ, উন্নয়ন বোর্ড ও জেলা পরিষদকে সমন্বয় করে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: সফিকুল আহম্মদের সভাপতিত্বে সভায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুপ্রু চৌধুরী, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মংসুপ্রু চৌধুরু, মন্ত্রণালয়ের পদস্থ কর্মকর্তাসহ দপ্তর ও সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।