কিশোরীর মরদেহ ২৫ দিন পর পরিবারের হাতে

কিশোরীর মরদেহ ২৫ দিন পর পরিবারের হাতে

নিউজ ডেস্ক: আইনি জটিলতার কারণে ২৫ দিন মর্গে পড়ে ছিল চাকমা কিশোরীর মরদেহ ।  অবশেষে বাবা-মার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে র‌্যাব-১৫ এর উপ পরিদির্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা অর্জুন চৌধুরী জানান, এই মরদেহটি দুটি পক্ষ দাবি করে আসছিল। যে কারণে এটা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়। পরে এ বিষয়টি তদন্তের জন্য র‌্যাবকে নির্দেশ দেন আদালত। আদালতের নির্দেশে বাবা-মায়ের কাছে মরদেহটি হস্তান্তর করে র‌্যাব।

জানাযায় ২০২০ সালের ৫ জানুয়ারি কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শিলখালী চাকমাপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে লাকিংম চাকমা পালিয়ে বিয়ে করে আতাউল্লাহকে।কিন্তু লাকিংমের পরিবার থানায় অপহরন মামলা করতে গেলে তা পারেনি, তাই  মামলা করেন আদালতে। অপর দিকে আদালত পিবিআইকে তদন্তের নিদ্দেশ দিলে পিবিআই তদন্ত শেষে এটি অপহর নয় র্মমে পতিবেদন দাখিল করে। মৃত্যু কালে নিহত লাকিংম চাকমার বয়স হয়ে ছিল ১৬ বছর। মৃত্যুর ২৮ দিন আগে একটি কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন লাকিংম চাকমা। ১০ ডিসেম্বর লাকিংম বিষপানে আত্মহত্যা করেন।

অপর দিকে লাকিংমের পরিবারের দাবি, আতাউল্লাহ নাবালক লাকিংম চাকমাকে অপহরণ করে পরে হত্যা করেছে।