ঢাকা জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও নির্বাচিত হলেন শামীম আরা নিপা

ঢাকা জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও নির্বাচিত হলেন শামীম আরা নিপা

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ  ঢাকা জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও নির্বাচিত হয়েছেন হরিণাকুন্ডের কৃতি সন্তান ঢাকার সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আরা নিপা। শামীম আরা নীপা ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ড উপজেলার বাকচুয়া গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন। পিতা জযনূদ্দীন আহমেদ একজন শিক্ষক হিসেবে বড় মানুষ হওয়ার স্বপ্ন দেখাতেন ছোট বেলা থেকেই। হরিণাকুন্ড সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয হতে এসএসসি, ঝিনাইদহ সরকারি নূরুন নাহার কলেজ হতে এইচএসসি এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ হতে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জণ করেন। শিক্ষা জীবনে প্রতি স্তরেই আশৈশব মেধাবী এই কৃতি শিক্ষার্থী তার মেধার সাক্ষর রাখতে সক্ষম হন।

২৯ তম বিসিএস-এ এডমিন ক্যাডারে উত্তীর্ণ হয়ে শামীম আরা নীপা পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সহকারি কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন। ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিশেষ সম্মাননা ও স্বীকৃতির স্মারক তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসনসচিব শেখ ইউসুফ হারুন, অতিরিক্ত সচিব মোজাম্মেল হোসেন। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিভাগীর কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান। ঢাকা জেলার শ্রেষ্ঠ ইউএনও হিসেবে শামীম আরা নিপার হাতে স্মারক তুলে দেওয়া হয়।

জনবান্ধব কর্মকর্তা হিসেবে সাধারণ মানুষের কাছে স্বীকৃতি মিলেছে তাঁর ঝুলিতে। বর্তমানে কর্মরত সাভার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে। চাল বিতরণের পুরো প্রক্রিয়াটি নিয়ে এসেছিলেন একটিমাত্র মোবাইল অ্যাপসে। যে প্রক্রিয়ায় উপকারভোগীরা তাদের হাতে পাওয়া কিউআর কোড সম্বলিত কার্ড দিয়ে নিয়মমতো কিনতে পেরেছেন সরকারের ১০ টাকা কেজির চাল। তাঁর সে উদ্যোগ সরকারের উচ্চ মহলের দৃষ্টিতে এলে সরকারিভাবেই এমন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় । চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনা সুরক্ষার পাশাপাশি সাধারণ রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা অক্ষুণ্ন রাখতে ডক্টরস সেফটি চেম্বার ও সেফটি কার্ট। যে উদ্যোগটি পরবর্তীতে দেশের অনেক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গ্রহণ করা হয়েছে।

২০১৬ সালে শামীম আরা নিপার কর্মস্থল ছিল ঢাকা জেলার দোহার উপজেলায়। তৎকালীন সময়ে তিনি দোহার উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বাড়ির আঙিনায় গিয়ে ভূমিসংক্রান্ত কাজের সেবা দিয়ে। ভবনের চারপাশ ঘিরে তৈরি করা হয়েছিল সবুজের সমারোহ, হয়েছিল সেবাগ্রহীতাদের জন্য আরামদায়ক বসার ব্যবস্থা। সামনে সাঁটানো হয়েছিল ডিজিটাল সাইনবোর্ড, নিরাপত্তা বেষ্টনি আর নতুন রঙের প্রলেপে ভবনটিও পেয়েছিল আভিজাত্যের শোভা।

শামীম আরা নিপা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের বিশেষ তাগিদ হচ্ছে মাঠপ্রশাসনকে জনবান্ধব হিসেবে তৈরি করা। সে ক্ষেত্রে প্রশাসনের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা যদি সে দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করে তাহলেই প্রকৃতপক্ষে সাধারণ মানুষ সুফল পাবে একইসাথে সরকারের উদ্দেশ্য সফল হবে।