বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে পাশে থাকবে জাপান

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি

সুমন দত্ত: বাংলাদেশ আগামীতে আরো উন্নতি করবে। তাতে জাপান বাংলাদেশের সহযোগী হিসেবে পাশে থাকবে। বাংলাদেশে জাইকার মতো জাপানি প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগ করছে। আমরা চাইবো জাপানের আরো প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুক।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিক্যাব আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন জাপানে রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি।

নাওকি আরো বলেছেন, বাংলাদেশ অর্থনীতিতে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ তার অবকাঠামো বদল করছে। ব্যবসা বাড়াতে নতুন নতুন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এগুলো বাস্তবায়ন হলে, বাংলাদেশ আগের চাইতে আরো বেশি ব্যবসা করতে পারবে।

মাতারবাড়ি ডিপ সি পোর্ট নির্মাণে বাংলাদেশকে সহায়তা করছে জাপান।

তার একটি পোস্টার উপস্থিত সাংবাদিকদের বিতরণ করেন জাপানের কর্মকর্তারা। বিগত ৫০ বছর জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের বিনিয়োগ সম্পর্ক কেমন গেছে, তার একটি সচিত্র প্রতিবেদন সাংবাদিকদের হাতে তুলে দেন রাষ্ট্রদূত। বঙ্গোপসাগর নিয়ে জাপানের ভাবনা কি তারও একটি পরিকল্পনা সবার সামনে তুলে ধরেন তিনি।

মাতারবাড়ি প্রজেক্টে জাপান কাজ করছে। এই প্রজেক্ট নিয়ে রাষ্ট্রদূত খুব আশাবাদী। এটা বাংলাদেশের সঙ্গে অন্য দেশগুলোর যোগাযোগের হাব হিসেবে কাজ করবে।

মিয়ানমারের সঙ্গে রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাপান বাংলাদেশের বিষয়ে অবগত আছে। রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরে যাবে। এমনটা জাপান সব সময় চেয়ে এসেছে। সেখানে শান্তি বিরাজ করুক এটাই চায় জাপান।

ইন্দো প্যাসেফিক ট্রেড সম্পর্কে রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ এই গ্রুপে যোগ দিতে পারে । এটা কোনো দেশকে লক্ষ্য করে নয়। যে কেউ ইন্দো প্যাসেফিক ট্রেডে যোগ দিতে পারে।

উপস্থিত সাংবাদিকদের একজনের প্রশ্ন ছিল বাংলাদেশে জাপানের প্রকল্পগুলো সময়মতো শেষ হয় না। জবাবে রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা চাই প্রকল্পগুলো যথা সময়ে শেষ হোক।