দিনাজপুরের বিরামপুরে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনের হালচাল

রেজওয়ান আলী, বিরামপুর দিনাজপুর প্রতিনিধি:   দিনাজপুরের বিরামপুরে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনের বর্তমান হালচাল নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদনে চিত্র জনগনের মাঝে প্রত্যক্ষ করা যায়। জানা যায়,আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে বিরমপুর পৌর এলাকায় সকল প্রার্থী জনগনের দ্বারে দ্বারে দিন রাত সমান করে জোরালো ভূমিকায় জনসংযোগ করে যাচ্ছেন।

তাদের একটায় প্রতয়াশা এবারে নির্বাচনে জয়লাভ করে জনগণের প্রতিনিধিত্ব গ্রহণ করা। জনগনের দ্বার গোঁড়ায় প্রার্থীরা বিভিন্ন রকম উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে জনসাধারণ অনেক প্রার্থীর মধ্যে যোগ্যতা সমপন্ন,জনদরদী,দেশ ও জনকল্যাণে কাজ করার মতো প্রার্থীকে খুঁজছেন।

মুল্যবান ভোট গ্রহণের আশায় সব প্রার্থীরা প্রত্যেক মহল্লার চা-পানের দোকানে ভোটারদের কে সেবা প্রদান করছেন। হাট-বাজার গুলোতেই একই অবস্থার চিত্র অবলোকন করা যায়। পদপ্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন মেয়র প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থীত নৌকা প্রতিক নিয়ে আক্কাস আলী ও নিকটতম প্রতিদন্দি নৌকা প্রতিক

প্রত্যাশী আলহাজ্ব মোসফিকুর রহমান,বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব লিয়াকত আলী সরকার টুটুল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থীত নৌকা প্রতিক না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে এ্যাডভোকেট মোঃ নুরুজ্রামান সরকার (জামান),বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী উপজেলা শাখা সভাপতি হুমাউন কবীর ও সাবেক মেয়র আজাদুল ইসলাম,বিশেষ ভূমিকায় জনসংযোগ করে যাচ্ছেন।

পর্যবেক্ষনে আরও জানা যায় যে, পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে সারাক্ষন তারা চুষে বেড়াচ্ছেন মানুষের বাড়ি বাড়ি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতিক। নৌকা প্রতিকে জয়লাভ করার লক্ষে উপজেলা কমিটি জোরালো ভাবে কাজ করছেন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি তাদের স্হান থেকে অনড় তারাও জোরে সোরে ঝেঁকে বসেছেন।

কমিশনার মহিলা ও পুরুষ গনও তাদের নিজ নিজ ওয়ার্ডে জনসংযোগে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এ বিষয়ে জনসাধারণের নিকট জানতে চাইলে তারা বলেন,এবারের নির্বাচন জনসাধারণ অনেক চিন্তা ভাবনা করবেন,কারন বিগত বৎসরে যারা দ্বায়িত্বে ছিল তারা তেমন কোন উন্নয়ন করতে পারেননি।

তবে এবারে আমরা যোগ্য প্রার্থী কে বেঁছে নিব ও তাকেই আমাদের নেতার আসন প্রদান করার চেষ্টা করব। যাতে করে তারা নির্বাচিত হয়ে দেশ ও জনগণের কল্যানে আসতে পারে। তারা আরও বলেন,এবারে নির্বাচন প্রতিযোগিতা মূলক ও আনন্দ মূখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে মর্মে তাদের সহমত পোষণ করেন।