যুক্তরাষ্ট্রে ৬ মাসের মধ্যে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক:    করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। এ ভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থা সবচেয়ে নাজুক। করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর দিক দিয়ে সবচেয়ে বেশি থাকা যুক্তরাষ্ট্রে গত ছয় মাসের মধ্যে গতকাল বুধবার সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার খবরে বলা হয়, বুধবার যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৪০০ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। দেশটির জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয় এ তথ্য জানিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হচ্ছে ‘থ্যাংকসগিভিং ডে’ ছুটি। তার আগের দিন দেশটিতে করোনা আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা ঘটল।

জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ সময় বিকেল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে করোনা আক্রান্ত হয়ে ২ লাখ ৬২ হাজার ২৬৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ২৭ লাখ ৭৭ হাজার ৭৫৩ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে প্রায় দুই লাখ মানুষের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

‘থ্যাংকসগিভিংয়ে’ ছুটি কাটাতে যুক্তরাষ্ট্রের অনেকেই পরিবার বন্ধুবান্ধবসহ একত্র হন। দেশটিতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এবার থ্যংকসগিভিংয়ের আগের রাতে ভ্রমণ কম হতে পারে। নব-নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন বলেছেন, দেশবাসীকে স্বাস্থ্য সতর্কতা মানার আবেদনের পাশাপাশি টিকা সরবরাহ করার পরিকল্পনা ত্বরান্বিত করার কথা বলেছেন।

থ্যাংকসগিভিং উপলক্ষে টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে বাইডেন বলেছেন, ‘সত্যিকারের আশা আছে। বাস্তব আশা। তাই লেগে থাকুন। নিজেকে ক্লান্তির কাছে আত্মসমর্পণ করতে দেবেন না। আপনারা আপনাদের জীবন ফিরে পাবেন। জীবন আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে, তা ঘটবেই। এ অবস্থা চিরদিন থাকবে না।’

করোনা সংক্রমণের দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পরই রয়েছে ভারত। দেশটিতে ৯২ লাখ ২২ হাজার ২১৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় মারা গেছে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৯৯ জন। এরপরই রয়েছে ব্রাজিল। ব্রাজিলে করোনায় মারা গেছে ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৬৯ জন। আর দেশটিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬১ লাখ ৬৬ হাজার ৬০৬ জন।

সারা বিশ্বে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬ কোটি ৪৫ লাখ ৫ হাজার ৮০১ জন। আর এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১৪ লাখ ২২ হাজার ৫১০ জন।