থামছে না হিন্দু নিপীড়ন, ঘটনা অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে

সুমন দত্ত: সারা দেশে হিন্দুদের টার্গেট করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করতে মাঠে নেমেছে একটি কুচক্রী মহল। এতে তারা ব্যবহার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। সরকার প্রতিটি ঘটনার বিচার না করে তদন্তের মোড় ভিন্ন দিকে ঘুরিয়ে দিচ্ছে।

দেশের হিন্দু সংগঠনগুলো এসবের বিরুদ্ধে সরব হলেও থামছে না হিন্দু নির্যাতন নিপীড়ন। শাসক গোষ্ঠীর কাছে প্রতিটি সাম্প্রদায়িক হামলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করা হয়। শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বেশ কয়েকটি হিন্দু সংগঠন এই উপলক্ষে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানব-বন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এতে নেতৃত্ব দেয় বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ফোরাম, হিন্দু ছাত্র ও যুব ফোরামের সদস্যরা।

এক প্রেস বিবৃতিতে ফোরামের সেক্রেটারি জেনারেল মানিক চন্দ্র সরকার বলেন, মিথ্যা ধর্ম অবমাননার অভিযোগে কুমিল্লার মুরাদনগরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা হচ্ছে। অথচ সরকার নীরব দর্শকের ভূমিকায়। এসব ঘটনার কোনো বিচার হচ্ছে না। উল্টো সাম্প্রদায়িক এসব হামলাকে অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে। মুরাদনগরে যা ঘটেছে তার দ্রুত বিচার করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক সাজার আবেদন জানান তিনি।

সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা আরও বলেন, দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিন্দু শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরে দলিত সম্প্রদায়ের এক ছাত্রীর ফেসবুক আইডি হ্যাক করা হয়। তারপর সেই আইডি থেকে অন্যধর্মের বিরুদ্ধে পোস্ট দেয়া হয়। এসবের তথ্য প্রমাণ পুলিশকে দেয়া হয়। পুলিশ সেই সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়ার পর উল্টো ওই শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে। আর জঙ্গিরা তার বাড়িঘর ভাংচুর করে। এই হচ্ছে বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতনের প্রতিকার।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কুশল বরণ চক্রবর্তীকে হত্যার হুমকি দিয়ে অডিও বার্তা পাঠায় জঙ্গি গোষ্ঠী। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কয়েকজন হিন্দু শিক্ষার্থীকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এভাবে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এ পর্যন্ত ৬ জন হিন্দু শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিলের অপচেষ্টা করা হচ্ছে। এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিক্ষোভ ও মানব-বন্ধনে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু যুব ফোরামের সভাপতি অ্যাডভোকেট বিবেক জোয়ারদার,সহ-সভাপতি দীপঙ্কর সাহা(নয়ন), কালী পদ মজুমদার,সাংগঠনিক সম্পাদক মোহন দাস, অজয় কুমার বিশ্বাস,রাজীব দাস,সুফল কুমার মণ্ডল, অ্যাডভোকেট বাসুদেব গুহ, গোপাল মণ্ডল।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম