টিকা আবিষ্কারের বিনিয়োগে সরকার উৎসাহী নয়: মেনন

চরম বৈষম্য উন্নয়নকে কেবল প্রশ্নবিদ্ধই করছে
চরম বৈষম্য উন্নয়নকে কেবল প্রশ্নবিদ্ধই করছে

নিউজ ডেস্ক :   ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, খেলাপিদের ঋণের হাজার কোটি টাকা মাওকুফ বা পুনঃতফসিল করতে আমরা যতটা উৎসাহী হয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা গ্রহণ করি, করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার বা ট্রায়ালে ততটা উৎসাহী নই। পশ্চিমা দেশগুলো এমনকি ভারতও নিজের ভ্যাকসিন আবিষ্কারে সরকার থেকে সহযোগিতা করছে। সেখানে বাংলাদেশের গবেষকরা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের হিউম্যান ট্রায়াল পর্যায়ে আছে দাবি করলেও সে ব্যাপারে কারও উৎসাহ দেখি না। সরকার কোনো সহযোগিতা করছে কি-না, সেটাও জানা নেই।

শনিবার ওয়ার্কার্স পার্টির ঢাকা মহানগর কমিটির সভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে রাশেদ খান মেনন আরও বলেন, করোনা সংক্রমণকালে স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি ও ভঙ্গুর অবস্থায় যে চিত্র বেরিয়ে এসেছে, তার অবসানের কোনো লক্ষণ নেই। বরং দুর্নীতিবাজরাই জেঁকে বসে আছে। একমাত্র জনদাবিই স্বাস্থ্যখাতের পুনর্গঠনে কর্তৃপক্ষকে বাধ্য করতে পারে।

ঢাকা মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন মহানগর সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায়, জাহাঙ্গীর আলম ফজলু, মো. তৌহিদ, কাজী আনোয়ারুল ইসলাম টিপু, বাবুল খান, শাহানা ফেরদৌসি লাকী, মুর্শিদা আখতার, কাজী মাহমুদুল হক সেনা, শিউলি শিকদার, আব্দুল আহাদ মিনার, তপন সাহা, তাপস দাস, ওমর ফারুক সুমন প্রমুখ।

একই দিন গাইবান্ধা জেলা জাতীয় কৃষক সমিতি ও খেতমজুর ইউনিয়নের যৌথ বর্ধিতসভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে রাশেদ খান মেনন বন্যাত্তোর কৃষি ও বন্যার্তদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। গাইবান্ধা জেলা কৃষক সমিতির সভাপতি মোছাদ্দেক আহমেদ বুলবুলের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন আমিনুল ইসলাম গোলাপ, প্রণব কুমার চৌধুরী, বীরেন সরকার, অ্যাডভোকেট আশরাফ, মিলন কান্তি বর্মণ, মাসুদুর রহমান প্রমুখ।