চলচ্চিত্র দিবস উদ্‌যাপন নিয়ে বিভেদ

নিউজ ডেস্ক: আগামীকাল ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। দিনটি পালন উপলক্ষে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস উদ্‌যাপন কমিটি দিনব্যাপী বিএফডিসিতে নানা অনুষ্ঠান হাতে নিয়েছে। বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, মেলা উদ্বোধন অনুষ্ঠান, টক শো, সেমিনার, লালগালিচা, স্থিরচিত্র প্রদর্শনী, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, চলচ্চিত্রশিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদির আয়োজন থাকছে দিনভর। তবে এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুকে রাখার কারণে আলাদা করে ‘চলচ্চিত্র স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটি’র ব্যানারে দিবসটি পালনের ঘোষণা দিয়েছেন চলচ্চিত্র পরিবারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁদের কথা, তথ্যমন্ত্রী উপস্থিত থাকলে চলচ্চিত্রের লোকজন কেউই ওই অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন না। তাঁদের অভিযোগ, তথ্যমন্ত্রী গত চার বছরে দেশি চলচ্চিত্রের কোনো উন্নয়নই করেননি। ভিনদেশি ছবির প্রতি দরদ বেশি তাঁর।

মন্ত্রীর উপস্থিতির কারণে শিল্পীরা অংশ নেবেন না চলচ্চিত্র দিবসের অনুষ্ঠানে, বিষয়টি জানতে পেরে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু প্রথম আলোকে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানান। তিনি বলেন, ‘সবকিছুই ঠিকঠাক চলছিল। হঠাৎ জানতে পারলাম, কতিপয় শিল্পী নাকি আমাদের নির্ধারিত অনুষ্ঠানে যোগ না দেওয়ার কথা বলেছেন। শুনেছি, তাঁরা বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে কেন অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন না, তার কোনো যুক্তিসংগত কারণ তাঁরা বলছেন না। এটি আমার কাছে অস্বাভাবিক মনে হয়েছে। এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি যে সরকারি এই অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়ে আলাদা অনুষ্ঠান করবেন তাঁরা। তবে যেকোনো শিল্পীই দিবসটিকে চাইলে আলাদাভাবে পালন করতে পারেন।’

চলচ্চিত্র পরিবারের সদস্য ও শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘বিভিন্ন উত্সবের দিন দেশীয় ছবির চেয়ে কলকাতার ছবি মুক্তির ব্যাপারে মন্ত্রীর আগ্রহ বেশি থাকে। চাপ প্রয়োগ করে তড়িঘড়ি মিটিং করে বিদেশি ছবি মুক্তি দিতে চান তিনি। তাঁর সঙ্গে আর কোনো কাজই করতে আগ্রহী নই আমরা।’ এই অভিনেতা আরও বলেন, ‘আমরা আমাদের মতো করে নানা আয়োজনের মাধ্যমে দিবসটি পালন করব। প্রস্তুতি চলছে।’

জাতীয় চলচ্চিত্র স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি ও চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক চিত্রনায়ক ফারুক বলেন, ‘আমরা মন্ত্রীর সঙ্গে কোনো অনুষ্ঠান করছি না। আমাদের মতো করে একটু বড় পরিসরে এবার এফডিসির বাইরেও নিয়ে যেতে চাই চলচ্চিত্র দিবসের অনুষ্ঠানটি।’ ফারুক বলেন, ‘আমি নিজেই বিএফডিসি কর্তৃপক্ষকে বলেছি, আপনারা আপনাদের মতো করে অনুষ্ঠানটি করেন, আমরা আমাদের মতো করি।’

এদিকে জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস উদ্‌যাপন কমিটির চেয়ারম্যান সৈয়দ হাসান ইমাম বলেন, ‘আমরা প্রতিবছর জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস উদ্‌যাপন কমিটির ব্যানারেই পালন করি। এবারও করব। বিএফডিসিও অনুষ্ঠানটির অংশ। তবে বিএফডিসি যদি তথ্যমন্ত্রীকে আনার ব্যাপারে জোর করে, তাহলে এই অনুষ্ঠানে তাঁদের বাদ দিয়ে আমরা নিজেরাই করব। কারণ, আমি নিজেও চলচ্চিত্র পরিবারের অংশ।’

তবে উদ্‌যাপন কমিটির সদস্যসচিব এবং বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আমির হোসেন বললেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, ‘এটি একটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান। অবশ্যই মন্ত্রী থাকবেন। ২০১২ সাল থেকে যেভাবে হয়ে আসছে, সেভাবেই হবে অনুষ্ঠানটি।’