অটিজম কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়: মেনন

স্টাফ রিপোর্টার: অটিজমের প্রতীকি রং হচ্ছে নীল। একারণে ২ এপ্রিল থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী নীল বাতি প্রজ্বলিত রাখা হবে বলে জানালেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, এম,পি। সমাজকল্যাণমন্ত্রী আজ ১ এপ্রিল ২০১৮খ্রি: , রবিবার দুপুরে সচিবালয়ের ৬ নং ভবনের ৭০৮ নং কক্ষে ২ এপ্রিল বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন ব্যক্তিদের নানা বিষয় ও সরকারের উদ্যোগ সমূহ তুলে ধরেন।

সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন- “ অটিজম কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়; এটি মানুষের হরমোনজনিত সমস্যার বহি: প্রকাশ। এটির প্রতীকি রং নীল। একারণে আগামী ৩ দিন সারাদেশে সকল গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় নীল বাতি প্রজ্বলিত হবে। একই সাথে সমাজসেবা অধিদফতর দিবসটি উপলক্ষ্যে আগামী ১৫ দিন নীল বাতি প্রজ্বলিত রাখবে। অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন ব্যক্তিদের নিয়ে বর্তমান সরকারের উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ড তুলে ধরতে গিয়ে জনাব মেনন বলেন-“ আমরা প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর সঠিক পরিসংখ্যান নির্ণয়ের লক্ষ্যে Disability Information System শিরোনামে একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে তথ্য ভান্ডারে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের তথ্যসমূহ সন্নিবেশিত করেছি।

ডাটা বেইজ অদ্যাবধি সনাক্তকৃত প্রতিবন্ধী সংখ্যার ১৫ লক্ষ ৫৮ হাজার ৫৪৩ জন। এর মধ্যে অটিজম ৪৪৬৭৫ জন, শারীরিক প্রতিবন্ধী ৬৯১৪৮৩ জন, দীর্ঘস্থায়ী মানসিক অসুস্থতা জনিত প্রতিবন্ধিতা ৫২,৮৪৬ জন, দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতা ২১৪৯৫৪ জন, বাক প্রতিবন্ধিতা ১১৪৪৮৯ জন, বুদ্ধি প্রতিবন্ধিতা ১২২৩০৮ জন, শ্রবণ প্রতিবন্ধিতা ৪৫৬৪৬ জন, শ্রবণ-দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতা ৬৫১৫ জন, সেরিপালসি ৬৯৯৩৪জন, বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধিতা ১৭৯৭২ জন, ডাউন সিনড্রোম ৩০৫৫ জন এবং অন্যান্য ১২৯১১ জন।”

মাননীয় সমাজকল্যাণমন্ত্রী প্রতিবন্ধী বৈশিষ্ট্যসম্পন্নদের নিয়ে সরকারের নানা উন্নয়ন কর্মকান্ড ও প্রতিবন্ধীবান্ধব কিছু আইনের কাথা তুলে ধরেন। মন্ত্রী উল্লেখ করে বলেন, “সরকার অটিজমসহ সকল প্রতিবন্ধী ব্যাক্তিদের উন্নয়নে ‘প্রতিবন্ধী ব্যাক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন ২০১৩’ এবং ‘নিউরো ডেভলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাষ্ট আইন ২০১৩’ নামে পৃথক দুটি আইন প্রণয়ন করেছে। যেখানে সরকারের প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের প্রতি কল্যাণমুখী দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তে সাংবিধানিক অধিকারভিত্তিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রকাশ পেয়েছে। প্রতিবন্ধী ব্যাক্তিদের অধিকার এখন আইন দ্বারা স্বীকৃত।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রণালয়ের সাথে সংযুক্ত দপ্তর ও সংস্থা সমূহের মাধ্যমে বাংলাদেশের সংবিধানের ১৫ (ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন নারী ও পুরুষের সার্বিক উন্নয়নে নানামুখী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। এ সকল কার্যক্রম আমরা গ্রহণ করছি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি), ভিশন ২০২১ ও ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বর্ণিত লক্ষ্যমাত্রসমূহের সাথে সংগতি রেখেই।”

পরিশেষে মন্ত্রী অটিজম ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ৩ টি ক্যাটাগরিতে ৩ জন করে মোট ৯ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পুরষ্কার প্রদানের জন্য মনোনিত করার কথা উল্লেখ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে সমাজকল্যাণমন্ত্রীর সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব নুরুজ্জামান আহমেদ এমপি ও সমাজকল্যাণ সচিব জনাব মো: জিল্লার রহমান।