সোহেল সিকদারের বিয়ে করা হল না আর…

রাউজান প্রতিনিধি: বিয়ে করা হল না সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়নের সিকদার বাড়ী আবু আহম্মদ সিকদারের বড় ছেলে নিয়াজ আহমেদ সোহেল সিকদারের। ৩০ বছর বয়সী সোহেল গত ৩ মাস আগে ওমান থেকে বাড়ী এসেছিল ভিসা ক্যানসেল করে।

এরপর তার বিয়ের পাকাপোক্ত কথা না হলেও সীতাকুন্ড উপজেলার একটি মেয়ের সাথে আংটি পড়াপড়ি হয়েছিল। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস বিয়ে চুড়ান্ত কথার আগেই পরপারে চলে গেল সোহেল। তার মৃত্যুতে সমগ্র এলাকায় চলছে শোকের মাতম। অত্যান্ত ন¤্র ভদ্র ও শিক্ষিত ধর্মীয় ভাবওয়ালা সোহেলের মৃত্যু সহজে কেউ মেনে নিতে পারছে না।

হলদিয়া সিকদার বাড়ীর সোহেলের পরিবার ও বাড়ীতে চলছে কান্নার রোল ও আহাজারী। লাশ দেখামাত্র তার মা জোহরা খাতুন জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। সোহেলের পিতা আবু আহম্মদ সিকদার বিদেশের মাটি আবুধাবীতে ছেলের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে তিনিও সেখানে বাকরুদ্ধ। গত সোমবার রাত দেড়টায় ঘাতক একটি ট্রাক প্রাণ কেড়ে নেয় সোহেল সহ ৩ জনের।

নিহতের চাচা সাহলম সিকদার জানান,২৬ মার্চ সোমবার রাতে হাটহাজারী উপজেলার মীরেরখীল একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে রাত অনুমান সাড়ে ১২টার সময় সিএনজি অটোরিকশা নম্বর চট্টগ্রাম-থ১১-০৮৯৮ যোগে শহরের বাসায় ফেরার পথে অক্সিজেন হাটহাজারী সড়কের নতুন পাড়াস্থ পিএইচপি ইব্রাহীম কটন মিল্স এলাকায় বিপরীত দিক থেকে বেপরোয়া গতিতে আসা ভারী ট্রাক নম্বর কক্সবাজার ট-১১-০০৬৭ যাত্রীবাহী সিএনজি অটোরিকশাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে সোহেল সহ সোহেলের নিকটাত্মীয় ফটিকছড়ি উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের আকবর চৌধুরী বাড়ীর হায়দার চৌধুরী রাকিব (১৮) ও একই ইউনিয়নের হাবিলাশ তালুকদার বাড়ীর জাসেদ (২৮) ঘটনাস্থলে নিহত হয়।

গতকাল মঙ্গলবার নিহত সোহেলের লাশ দুপুর দেড়টার দিকে বাড়ীতে এছে পৌছলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণ হয়। সোহেলরা দুই ভাই, ছোটভাই রিয়াজ আহমদ আকাশ বি.কমে অধ্যায়নরত। বড় ভাইয়ের মৃত্যুতে ছোটভাইও বাকরুদ্ধ। বিকালে বিশাল জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে সোহেলকে দাফন করা হয়।

প্রিন্স, ঢাকা