ক্রিকেট জয়ে আনন্দে হাসপাতালে পিতার মৃত্যু, বিক্ষুদ্ধ ২ শিক্ষার্থী পূত্র জেল-হাজতে


ময়মসনসিংহ ব্যুরো :
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জয়ের আনন্দে আত্মহারা হয়ে স্ট্রোক করে ব্যবসায়ী পিতাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসকের অবহেলায় মুত্যুর অভিযোগ উঠে। এর প্রতিবাদে কর্তব্যরতদের উপর স্বজনরা ক্ষিপ্ত হলে মামলা দিয়ে দুই শিক্ষার্থী পূত্রকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
কোতোয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তাইজুল ইসলাম জানান, শুক্রবার রাতে হাসপাতালে ভর্তি করানোর পর শনিবার সকালে ব্যবসায়ী মতিউর রহমান মারা যান। এ ঘটনায় তার স্বজনরা ইন্টার্ন চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ তোলেন। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রোগীর স্বজনরা ওই ইন্টার্ন চিকিৎসকদের উপর চড়াও হয়। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ওই রোগীর দুই ছেলে সারোয়ার (১৭) ও মনোয়ারকে (১৫) আটকিয়ে মারধর করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত শুক্রবার রাত ১২টার দিকে স্ট্রোকে আক্রান্ত নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলার ফতেপুর গ্রামের বাসিন্দা মতিউর রহমান (৬২ ) হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার সন্তানরা । ডাক্তারদের বার বার তাগিদ দিয়েও চিকিৎসা সুষ্ঠু চিকিৎসা করাতে ব্যর্থ হন মতিউর রহমানের পুত্র কাওসার, ফুলপুর ডিগ্রী কলেজের ছাত্র সারোয়ার , ৯ম শ্রেণিতে পড়–য়া মনোয়ার এবং তাদের খালা জেসমিন চৌধুরী । এক পর্যায়ে তারা ওই ডাক্তারদের কাকুতি মিনতি করে । কিন্তু কর্তব্যরত ডাক্তাররা পরিচালকের নির্দেশে হামপাতালে কর্মরত আনসারদের ডেকে এনে তাদের হাতে তুলে দেয় । আনসাররা রাতভর তাদেরকে আটকে রেখে বেধরক পেটায় । এদিকে সুচিকিৎসা অভাব এবং পরিবারের লোকজনকে না পেয়ে রাত ৪টার দিকে মারা যান মতিউর রহমান । কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ স্বজনদের নামে থানায় অভিযোগ করে । অভিযোগের বাদি পরিচালকের পক্ষে প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান । এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান, মানবিক কারনে লাশ দাফনের জন্য মুচলেকায় স্থানীয় চেয়ারম্যানের জিম্মায় তাদেরকে বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।
এস.আই তাইজুল ইসলাম আরো জানান, রোগীর দুই সস্তান ইন্টার্ন চিকিৎসকদের মারধর করেনি বলে আমাদের কাছে দাবি করেছেন। আমরা পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। আলাপ-আলোচনা চলছে। এ বিষয়ে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।