শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পাহাড়ী জনপদ বদলে গেছে: বীর বাহাদুর

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলায় শুক্রবার ২৬শে জানুয়ারী দুপুরের দিকে গুইমারা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রথম পূর্ণ মিলনী উৎসবে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত থেকে বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্রনালয়ের প্রতিমন্রী বীর বাহাদুর উশৈশিং এমপি তিনি বলেন, সচেতনতায় আজকের ছাত্রদের ভবিষ্যতে দেশের সম্পদে রূপান্তরিত করবে মন্তব্য করে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, সম্পদ তৈরীতে অভিভাবকদের সচেতন থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পাহাড়ী জনপদ বদলে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পাহাড়ের মানুষ এখন আর বোঝা নয়, সম্পদ। শেখ হাসিনা সরকার লেখাপড়ার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে তৈরি করতে নিরলশভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশের শিক্ষাখাতে ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। শিক্ষকদের জীবনমান উন্নয়নে নানা ধরণের কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে।

অভিভাবকদেরকে নিজ নিজ সন্তানের প্রতি অধিকতর যত্মবান হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, তাদেরকে সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখাতে হবে। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে শিক্ষকদের প্রতি আহবান জানান প্রতিমন্রী বীর বাহাদুর
উশৈশিং।

গুইমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীর সভাপতিত্বে উৎসবে ভারত প্রত্যাগত শরনার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ কামরুজ্জামান এনডিসি, পিএসসি, জি, খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো: রাশেদুল ইসলাম ও খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মো: আলী আহম্মদ খান বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

অন্যান্যের মাঝে উপস্হিত ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ সদস্য মংশেপ্রু চৌধুরী অপু, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ সদস্য পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল, গুইমারা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান উশ্যেপ্রু মারমা, গুইমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ বড়ুয়া, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো: শামছুল হক, গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, গুইমারা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্না এিপুরা, পুনর্মিলনী উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও গুইমারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মেমং মারমা, হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চৌধুরী, সিন্দুকছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেদাক মারমা, প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে জাতীয় সঙ্গীতের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা ও পুনর্মিলনী উৎসবের পতাকা উত্তোলন শেষে এক বর্ণিল সাজে র‌্যালি বের হয়ে গুইমারা উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে উৎসব মাঠে গিয়ে শেষ হয়। এতে বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থীরা আলাদা আলাদা ভাবে রঙ্গিন ব্যানারে র‌্যালিতে অংশ গ্রহণ করে।

প্রিন্স, ঢাকা