ডিকভেলাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন সাইফুদ্দিন

নিউজ ডেস্ক: ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে স্বাগতিক বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে আগে ব্যাট করছে শ্রীলংকা।

২৭ ওভারের খেলা শেষে শ্রীলংকার সংগ্রহ ৩ উইকেট হারিয়ে ১২১ রান।

উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান উপুল থারাঙ্গা ৪০ রানে ব্যাট করছেন। তার সঙ্গে অপর প্রান্তে থাকা দিনেশ চান্দিমালের সংগ্রহ ৪ রান।

শনিবার বেলা ১২টায় ঢাকার মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হয়েছে।

টস হেরে বোলিং করতে নেমে শুরুতেই স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজের হাতে বল তুলে দেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি। আস্থার প্রতিদান দিতে দেরি করেননি মিরাজ। নিজের দ্বিতীয় ওভারেই তুলে নেন লংকান ওপেনার ধানুশকা গুনাথিলকাকে। মিরাজের করা ইনিংসের তৃতীয় ওভারের শেষ বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে গুনাথিলকা মিডঅফে তামিম ইকবালে হাতে ধরা পড়লে শ্রীলংকার প্রথম উইকেটের পতন হয়।সাজঘরে ফেরার আগে গুনাথিলকা করেন ৬ রান।

গুনাথিলকার বিদায়ের পর ব্যাট করতে নামা কুশল মেন্ডিস নেমেই ঝড় তোলেন। তিন ছক্কা ও দুই চারে ৮ বলেই তুলে নেন ২৮ রান। তবে বিপদ বাড়তে দেননি টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে বোলিংয়ে এসেই আঘাত হানেন ম্যাশ। ওভারের শেষ বলে মাশরাফিকেও উড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন মেন্ডিস। তবে এবার আর পারেননি, মিডঅনে ধরা পড়েন মাহমুদুল্লাহর হাতে। শেষ পর্যন্ত ৯ বলে ২৮ রান করেই সাজঘরের পথ ধরেন তিনি।

মেন্ডিস সাজঘরে ফেরার পর ব্যাট করতে নামেন লংকান উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান নিরোশান ডিকভেলা। তাকে নিয়ে দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন উপুল থারাঙ্গা। তৃতীয় উইকেটে এ জুটি দলীয় সংগ্রহে যোগ করেন ৭১ রান। ইনিংসের ২৪তম ওভারে বোলিংয়ে এসে ডিকভেলাকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে জুটি ভাঙেন সাইফুদ্দিন। সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ডিকেভেলা করেন ৪২ রান।

ফাইনালের আগের ম্যাচে শ্রীলংকার কাছে বড় ব্যবধানে হারা টাইগাররা এই ম্যাচে তিনটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামছে। আগে ম্যাচে দলে থাকা এনামুল হক, নাসির হোসেন ও আবুল হাসান রাজু ফাইনালের একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন। তাদের জায়গায় দলে ঢুকেছেন মোহাম্মদ মিঠুন, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ও মেহেদি হাসান মিরাজ।

অন্যদিকে আগের ম্যাচের দলে একটি পরিবর্তন এনে ফাইনালের একাদশ গড়েছে শ্রীলংকা। বাংলাদেশের বিপক্ষে আগের ম্যাচের দল থেকে বাদ পড়েছেন লক্ষ্মণ সান্দাকান। তার স্থলে দলে জায়গা পেয়েছেন শেহান মাদুশঙ্কা।

ত্রিদেশীয় কোনো সিরিজে এখন পর্যন্ত শিরোপা জিততে না পারা বাংলাদেশ এই শিরোপা নিজেদের করে নিতে মুখিয়ে আছে। অন্যদিকে ফাইনালের আগে বাংলাদেশকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে অনেকটা ফুরফুরে মেজাজে থাকা শ্রীলংকাও ট্রফির অন্যতম দাবিদার। সে হিসেবে একটি জমজমাট ফাইনাল দেখার আশা করতেই পারেন দর্শকরা।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, মোহাম্মদ মিঠুন, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদুল্লাহ, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মেহেদি হাসান মিরাজ, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), মোস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন।

শ্রীলংকা একাদশ: উপুল থারাঙ্গা, ধানুশকা গুনাথিলকা, কুশল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল (অধিনায়ক), নিরোশান ডিকভেলা (উইকেটরক্ষক), আসেলা গুনারত্নে, থিসারা পেরেরা, আকিলা ধনঞ্জয়া, সুরঙ্গা লাকমল,  দুশমন্ত চামিরা ও শেহান মাদুশঙ্কা।