কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

নিউজ ডেস্ক: কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক যুবক নিহত হয়েছে।

শনিবার রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার আলেখাচর সাবুরিয়া সিএনজি পাম্পের পেছনে গোমতি নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এ ঘটনায় ডিবির এক এসআইসহ তিনজন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন অভিযানে অংশ নেওয়া ডিবির এসআই সহিদুল ইসলাম।

ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তলসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নিহত আবু তাহের (২৮) কুমিল্লা নগরীর সংরাইশ এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে।

ডিবি বলছে, তাহের একজন শীর্ষ সন্ত্রাসী এবং কুমিল্লার বহুল আলোচিত তাহের বাহিনীর প্রধান।

ডিবির পরিদর্শক একেএম মঞ্জুর আলম জানান, আলেখাচর সাবুরিয়া সিএনজি স্টেশনের পেছনে গোমতি নদীর বাঁধে ১০/১৫ জনের একটি ডাকাতদল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন খবর পেয়ে ডিবির একটি দল সেখানে যায়। এ সময় ডাকাত দল ডিবি পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালালে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় ওই ডাকাত দলের প্রধান শীর্ষ সন্ত্রাসী আবু তাহের গুলিতে আহত হন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, অভিযানে অংশ নেয়া ডিবি পুলিশ সদস্যদের মধ্যে এসআই সহিদুল ইসলাম, এএসআই শাহীন ও কনস্টেবল ইসমাঈল আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ লিটন নামের এক ডাকাতকে আটক করেছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে দুই রাউন্ড গুলিসহ একটি পিস্তল এবং বেশ কিছু দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

মঞ্জুর আলম আরও জানান, শীর্ষ সন্ত্রাসী আবু তাহেরের নেতৃত্বেই নগরীসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছিল। তার বিরুদ্ধে অন্তত এক ডজন মামলা রয়েছে।

এর আগে গত বছরের ৭ আগস্ট রেলওয়ের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ম্যাক্সের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতনের ৪০ লাখ টাকা নগরীর মনোহরপুর এলাকাস্থ শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক থেকে উত্তোলনের পর ওই কোম্পানির হিসাব রক্ষক মাইন উদ্দিনকে গুলি করে সেই টাকা সন্ত্রাসী তাহেরসহ তার বাহিনীর লোকজন ছিনিয়ে নিয়েছিল বলেও জানান ওসি।

এ বিষয়ে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে রোববার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে প্রেস বিফ্রিংয় করে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হবে বলে ডিবি পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।