লাঞ্চিত কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা

দাকোপ, খুলনা প্রতিনিধি: জেলার দাকোপ উপজেলায় প্রেমিকের হাতে লাঞ্চিত হয়ে চালনা এমএম কলেজের ছাত্রী নাজমা খাতুন(২৩) গালায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় তার লাশ উদ্ধার করে দাকোপ থানা পুলিশ। তবে এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু দায়ের করা হয়েছে। যাহার নং- ০১, তারিখঃ ০২.০১.১৮ ইং।

জানা যায়, উপজেলার কামারখোলা ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামের লক্ষিপদ বাছাড়ের পুত্র দেবাশীষ বাছাড়(২৬) এর সাথে একই ইউনিয়নের রেখামারী গ্রামের নহর আলীর মেয়ে এমএম কলেজের ডিগ্রি শেষ বর্ষের ছাত্রী নাজমা খাতুনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

ভুক্তোভূগীর পরিবার বলেন, নাজমার সাথে লম্পট দেবাশীষ কয়েক বছর ধরে তার সাথে প্রেমের ছলনা করে। তাছাড়া আমাদের মেয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্কও করে।

উল্লেখ্য শনিবার আত্মহত্যার আগে তাদের দু’জনকে এলাকাবাসী এক ঘরের ভিতর পায়। এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হয়।

সুত্রে আরও জানা যায়, প্রেমের সম্পর্ক ও একই ঘরের মধ্যে থাকা ঘটনাটি অস্বীকার করে দিবাশীষ এলাকা ছেড়ে পলাতক। এ অপমান সহ্য না করতে পেরে নাজমা তার নিজের বাড়িতে সিরিজ গাছে সাথে দড়ি পেছিয়ে সোমবার দিবাগত রাত্র আনুমানিক ৩টায় আত্মহত্যা করে।

এ বিষয়ে দীবাশীষ বাছাড়ের কাছে জানার জন্য তার মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করলেও কোন সংযোগ মেলেনি।
দাকোপ থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ সাহাবুদ্দিন চৌধুরী বলেন, মৃত্যের দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এর সাথে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় আনা হবে।