নিষিদ্ধ হচ্ছেন নির্মাতা মামুন

নিউজ ডেস্ক: সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আড়ালে ৫৭ জন আদম পাচারের অভিযোগে আটক বাংলাদেশের সিনেমা পরিচালক অনন্য মামুনসহ ১৯ জনকে মালয়েশিয়ার অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিষয়ক একটি কঠোর আইনে বন্দি করা হয়েছে।

তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ ১৫ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। বিদেশি গনমাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন মালয়েশিয়ান কর্তৃপক্ষ। এদিকে ডাংওয়াংগি পুলিশ বিভাগের প্রধান শাহারুদ্দিন আবদুল্লাহ বার্তা সংস্থাকে বলেন, অনন্য মামুনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

মামুন পুলিশের কাছে টাকার বিনিময়ে আদম পাচারের কথা স্বীকার করেছে। মামুন জানিয়েছে, এই আদম পাচারের মূল হোতা ঢাকার লাইভ টেকনোলজি নামে একটি প্রতিষ্ঠান। তারাই মূলত আদম সংগ্রহ করেছে।

তার এই অপরাধ দেশবাসীর কাছে দেশীয় চলচ্চিত্রের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। এজন্যই তার সদস্যপদ প্রাথমিকভাবে স্থগিত করেছে পরিচালক সমিতি। গত ২৮ ডিসেম্বর পরিচালক সমিতির এক বৈঠকে অনন্য মামুনের সদস্যপদ সাময়িক স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার জানিয়েছেন।

তিনি জানান, অনন্য মামুন আমাদের লজ্জিত করেছে দেশ ও বিদেশের সিনেমাপ্রেমীদের কাছে। সবার কাছে সিনেমার মানুষদের ছোট করেছে সে। তার বিরুদ্ধে আদম পাচারের যে অভিযোগ সেটার বিপরীতে এটা আমাদের প্রথম পদক্ষেপ। আমরা পুরো বিষয়টার সত্যতা জেনে শিগগিরই কঠোর সিদ্ধান্তে যাবো। অভিযোগের সত্যতা পেলে তাকে আজীবন নিষিদ্ধ করা হবে।

মুশফিকুর রহমান গুলজার আরও বলেন, এর আগেও একবার তার সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছিল। সে অনেক অঙ্গীরনামা দিয়ে সদস্যপদ ফিরে পেয়েছিল। আমরাও ভেবেছি সে ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু এবারে সে আন্তর্জাতিকভাবে অপরাধী, তাকে ক্ষমা করা চলে না। শুধু তার সদস্যপদ বাতিলই নয়, আরও কঠোর সিদ্ধান্ত নেবো আমরা।