মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রীর

ময়মনসিংহ প্রতিবেদক: ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলনের নেতৃবৃন্দের জোর তৎপরতায় বহু জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে দেশের অষ্টম বিভাগীয় ও শিক্ষার শহরের প্রতি সদয় হয়ে ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভাগীয় কোঠায় মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি ময়মনসিংহ শহরে স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছেন।

ময়মনসিংহ শহরে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আন্তরিক অভিনন্দন শুভেচ্ছা ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি বর্ষিয়ান আইনজীবী আনিসুর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নূরুল আমীন কালাম, ময়মসনসিংহ পৌরসভার মেয়র ইকরামূল হক টিটু, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এফ.এম এ সালাম ও সাধারণ সম্পাদক দৈনিক আমাদের সময় স্টাফ রিপোর্টার মো. নজরুল ইসলাম প্রমূখ। বর্তমানে প্রায় ২৮ একর জমির উপর ময়মনসিংহ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ক্যাম্পাসের সাথে অব্যহৃত প্রায় ১০ একর জমিতে ময়মনসিংহ মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপিত হচ্ছে বলে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্র জানায়।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) বৈঠকে উপস্থিত কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ আলমগীর জানান, ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে ৪টি নতুন মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছেন। ময়মনসিংহ শহরে ময়মনসিংহ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ক্যাম্পাসেই ময়মনসিংহ মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপিত হবে। বিভাগীয় কোঠায় ইতিপূর্বে ঢাকা, চট্রগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনা শহরের বিভাগীয় পর্যায়ে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপিত হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্র জানায়, বিভাগীয় কোঠায় ‘ময়মনসিংহ মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ’ স্থাপনের প্রকল্পটি শেরপুরের জনৈক প্রভাবশালী মন্ত্রী তদবির করে সেটি তার এলাকার নিয়ে যাওয়ার জন্য জোর তদবির শুরু করে। যার প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট বিভাগ শেরপুর জেলার নকলার এক অজপাড়াগাঁয়ে ময়মনসিংহ মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের জন্য পকিল্পণা বিভাগ থেকে একটি প্রস্তাবনা তৈরী করে ২৬ ডিসেম্বর একনেক সভায় অনুমোদনের জন্য প্রস্তুত করা হয়।

২৫ ডিসেম্বর বিকেলে এই খবর জানতে পারেন ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার মো. নজরুল ইসলাম। সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বিভিন্ন মন্ত্রী ও সচিবদের মোবাইল করে নারী শিক্ষার এই বিভাগীয় মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি স্থাপনের যুক্তিকতা তুলে ধরে তাদের সহযোগিতা কামনা করেন। সাংবাদিক নজরুল ইসলাম জেলা নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খানকেও বিষয়টি অবহিত করেন। তিনিও বিভিন্ন সচিব ও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে মোবাইল করে ময়মনসিংহ শহরে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি স্থাপনের যুক্তিকতা তুলে ধরেন।

২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একনেক সভায় অন্যান্য প্রকল্পের সাথে ৪টি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি স্থাপনের প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হয়। ময়মনসিংহ মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটটি শেরপুরের নকলায় স্থাপনের প্রকল্প প্রস্তাব তুলে ধরা হলে তা নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয় এলাকাবাসীর প্রতি সদয় হয়ে ময়মনসিংহ শহরে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপনের সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্তের কথা জানতে পেরে ময়মনসিংহের বিভিন্ন স্তরে আনন্দের জোয়ার বইতে থাকে। সেই সাথে বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

প্রিন্স, ঢাকা