ভোটের দিন কেন্দ্রগুলো পাহারা দিতে হবে: ফখরুল

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ভোট চোরের দল। এ সরকারের আমলে কোনো নির্বাচনই সুষ্ঠু হয়নি। তাই ভোটের দিন ভোটকেন্দ্রগুলোতে পাহারা দিতে হবে। রংপুর সিটি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমরা এ সরকারকে একটা ম্যাসেজ দিতে পারি যে, তোমাদের এ দেশের মানুষ আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না।’

সোমবার রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সিও বাজারে বিএনপির মেয়র প্রার্থী কাওসার জামান বাবলার নির্বাচনী পথসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পথসভার শুরুতে ফখরুল রংপুরের আঞ্চলিক ভাষায় বলেন, ‘কেমন আছেন বাহে তোমরা, মুই তোমারগুলার ছাওয়াল। মোর বাড়ি ঠাকুরগাঁও। তোমারগুলার সাথে আত্মার সম্পর্ক আছে।’

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘আপনাদের রংপুরে একজন ছাওয়াল আছেন। তিনি রংপুরে কোনো উন্নয়নই করেননি। তিনি বিরোধিদলের থাকার অঙ্গীকার করে এখন আওয়ামী লীগের সাথে জোটে রয়েছেন। এ সরকার আমার মায়ের-বোনের বুক খালি করেছেন। তাদের সঙ্গে যারা জোট করেছেন তাদের সাথে কোনো সম্পর্ক নেই।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এ নির্বাচন শুধু নির্বাচন নয়, এর গুরুত্ব অনেক বেশি। দেশবাসী এ নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে আছে। এ সরকারের আমলে চালের কেজি ১০ টাকা থেকে ৪০ টাকা, পেয়াজ ১০০ টাকা হয়েছে। ঘুষ ও দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে দেশ। ১০ হাজার কোটি টাকার পদ্মসেতু প্রকল্প এখন ৩০ হাজার কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। ভোট চুরি করে এ সরকার ৮ বছর ধরে জনগণের ওপর চেপে আছে। কৃষকদের সেচের তেল বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করেছে। এতে উৎপাদন খরচও বেড়ে গেছে। কিন্তু সে অনুপাতে তারা দাম পাচ্ছেন না। এতে করে অনেক কলকারখানা বন্ধ হয়ে গেছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ নির্বাচন বাবলার নয়, এ নির্বাচন অধিকার প্রতিষ্ঠার নির্বাচন। আমরা আর বাকশাল কায়েম করতে দেব না।’

রংপুরের মানুষ সংগ্রামী-আন্দোলনকারী— এমন মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ভোট যাতে চুরি করতে না পারে সেজন্য সতর্ক থাকতে হবে।

মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য ধানের শীষে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ২১ ডিসেম্বর আপনারা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ধানের শীষে ভোট দিয়ে বাবলাকে জয়যুক্ত করবেন।

নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তারা সরকারি দলের লোকজনকে বেশি সুবিধা দিচ্ছেন। তারা [আওয়ামী লীগের প্রার্থী] নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘন করলেও তাদের কিছুই বলছেন না। অথচ আমাদের প্রার্থীকে নানাভাবে প্রচারে হয়রানি করা হচ্ছে।’

তবে বিএনপি শেষ পর্যন্ত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে থাকবে বলেও এ সময় উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক, বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ টুকু, রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু, মেয়র প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা, মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রইস আহমেদ প্রমুখ এ সময় মির্জা ফখরুলের সঙ্গে ছিলেন।

পরে বিএনপি মহাসচিব নগরীর কাচারি বাজার ও পায়রা চত্বরে ধানের শীষের পক্ষে প্রচারণা চালান।