নির্বাচন নিয়ে নীল নকশার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে: রিজভী

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, গত দুইদিন আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা বলেছেন- ‘আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জয়লাভের ব্যাপারে কোনো সংশয় নেই। এখন আওয়ামী লীগকে ভোটে হারানোর মতো দল আর বাংলাদেশে নাই।’

এই মনোভাব বহুদলীয় গণতন্ত্র, সুশাসন ও মানুষের নাগরিক অধিকারকে কুঠারাঘাত করার সামিল। ২০১৪ সালের ভোটারবিহীন নির্বাচনের আগেও তিনি একইরকম জরীপ প্রকাশ করে বলেছিলেন যে, ‘আমার কাছে তথ্য আছে-আওয়ামী লীগই জিতবে।’ তাহলে এবারেও তার বক্তব্যে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আরেকটা নীল নকশার নির্বাচনের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা বলেছেন- তিনি মেশিন দিয়ে জরিপ চালিয়েছেন।তিনি জনগণের মধ্যে জরিপ চালাননি। তথ্য প্রযু্িক্ত উপদেষ্টা যে মেশিনের কথা বলছেন সেটি ‘আওয়ামী মেশিন’। সেই মেশিনের জরিপে জনগণের প্রকৃত মনোভাব ফুটে ওঠেনা, মেশিনে শুধু আওয়ামী মনোভাবই ফুটে ওঠে।

বুধবার বিএনপি অফিসে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী একথা বলেন। রিজভী বলেন, সরকার বিচারকদের শৃঙ্খলাবিধির যে গেজেট প্রকাশ করেছে তাতে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা বলে কিছু নেই। মাসদার হোসেন মামলায় বিচার বিভাগকে পৃথকীকরণ নিয়ে সুপ্রিমকোর্ট যে নির্দেশ দিয়েছিল তার পরিপন্থী। এমনকি সংবিধানেরও পরিপন্থী। এই শৃঙ্খলাবিধি সংবিধানের ২২ অুনচ্ছেদ লঙ্ঘন করেছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, ২২ অনুচ্ছেদে স্পষ্টভাবে লেখা আছে- বিচার বিভাগ হবে একটি স্বাধীন অঙ্গ এবং বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ সম্পূর্ণভাবে পৃথকীকরণ করা হবে। সেজন্য আইনও পাস করা হয়েছে। আজকে এই শৃঙ্খলাবিধির মাধ্যমে প্রশাসন থেকে বিচার বিভাগকে পৃথকীকরণের মৃত্যু ঘটেছে।

রিজভী বলেন, ছাত্রলীগ ‘স্কুল পর্যায়ে কমিটি ঘোষণা’ করবে এই ঘোষণার পর কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মধ্যে হানাহানি ছড়িয়ে পড়েছে। গত দু’দিন আগে মৌলভীবাজারে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন হয়েছে শাবাব ও মাহী নামে দুই স্কুল শিক্ষার্থী। এদের পরিবারে চলছে এখন শোকের মাতম। ক্ষমতাসীনরা দেশব্যাপী সন্ত্রাসের পরিকাঠামো নির্মাণের জন্য স্কুল পর্যায়ে কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।