সকলকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে স্বোচ্চার হতে হবে: কমিশনার

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান বলেছেন, দুর্নীতি একটি সামাজিক ব্যাধি। দুর্নীতি পৃথিবীর সব দেশে আছে। কিন্তু সীমা লঙ্ঘণ করে নয়। দুর্নীতির যখন সুযোগ থাকে তখন তৃণমূল পর্যায় থেকে সর্বত্র দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়ে।

শুধু প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা দুর্নীতি করে না। যে যেখানে সুযোগ পাচ্ছে সেখানে দুর্নীতি করে যাচ্ছেন। শহরের বাইরে গ্রামেও যারা নেতৃত্ব দিচ্ছে তারা বিভিন্নভাবে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছে। শিক্ষার সাথে যারা সম্পৃক্ত তারা যদি দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে তাহলে আগামী প্রজন্মকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে স্বোচ্চার করতে পারবো না। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পূর্বে ও পরে বলেছিলেন আমাদের দেশের খেটে খাওয়া মানুষ কোনভাবেই দুর্নীতির সাথে জড়িত নয়।

সেদিন বঙ্গবন্ধুর ডাকে যারা মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে স্বাধীনতার লাল সূর্য ছিনিয়ে এনেছে তারাও সাধারণ মানুষ। কিন্তু আজ এক শ্রেণির লোকের কারণে দুর্নীতি সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে পড়েছে। সাধারণ জনগণ দুর্নীতি মুক্ত সেবা পাচ্ছে না। জাতির জনকের কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশকে দুর্নীতি মুক্ত রাখতে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন।

তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে জনগণের দোড়গোড়ায় কাক্সিক্ষত সেবা নিশ্চিত করতে সরকার মাঠ প্রশাসনকে ঢেলে সাজিয়েছে। মানুষ এখন ঘরে বসেই সরকারি সেবা গ্রহণ করতে পারছে। ফলে দুর্নীতি অনেকটা সহনীয় পর্যায়ে চলে এসেছে। দেশের ১২ কোটি মানুষ বর্তমানে মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে।

দুর্নীতি প্রতিরোধে এসব মোবাইল ফোন বিভিন্ন মাধ্যমে কার্যকরী ভূমিকা রাখছে। সংসার ও সন্তানের জন্য এবং লোভে বশীভূত হয়ে ঘুষ নেয়া চরম অপরাধ। এ প্রজন্মের সন্তানেরা আগামীতে দুর্নীতিবাজ ও ঘুষখোর পিতা-মাতাকে ঘৃণা করবে। দুর্নীতিবাজরা এ পথ থেকে সরে না এলে বিপদ হবে। দুর্নীতি শতভাগ রোধ করতে না পারলেও সহনশীল পর্যায়ে নিয়ে আসতে হবে। তাই আমরা সততা ও নিষ্ঠার সাথে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করলে দুর্নীতিমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ হবে।

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরাসহ সকলকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে এবং এখন থেকে প্রত্যেককে শপথ নিতে হবে ‘দুর্নীতি করবো না’। শনিবার চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেশিয়াম হলে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রাম ও মহানগর দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি কর্তৃক আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস ২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি ড. এস.এম মনির উজ জামান বিপিএম,পিপিএম, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. ইকবাল বাহার বিপিএম,পিপিএম, জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, মহানগর দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মনোয়ার হাকিম আলী ও সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) চট্টগ্রাম মহানগরীর সভাপতি এডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মো. আক্তার হোসেন। আলোচনার পূর্বে সকাল সাড়ে ৯টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে বেলুন ও কপোত উড়িয়ে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবসের উদ্বোধন করেন বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মানান। এরপর সাকিট হাউসের সামনে ও আশপাশের সড়কে দুর্নীতি প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেন বিভাগীয় কমিশনারসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।

এ সময় দুর্নীতি বিরোধী পোস্টার সম্বলিত তিনটি বাসে ফিতা কেটে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘না’ বলার আহ্বান জানান বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান, পুলিশের রেঞ্জ ডিআইজি এস.এম মনির উজ জামান ও জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী।

মানববন্ধন কর্মসূচি ও বর্ণাঢ্য র‌্যালিতে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা অংশ নেন। এরপর শুরু হয় দুর্নীতি বিরোধী গণস্বাক্ষর। সকাল ১০টায় আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস উপলক্ষে এক বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেশিয়াম হলে গিয়ে শেষ হয়।

সবশেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সরকারের বিভিন্নস্তরে কর্মরত পদস্থ কর্মকর্তা, চিটাগাং চেম্বার, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রিন্স, ঢাকা