গেইল তাণ্ডবে খুলনার বিদায়

নিউজ ডেস্ক:  ক্রিস গেইলের ব্যাটিং তাণ্ডবে বিপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে খুলনা টাইটান্সকে স্রেফ উড়িয়ে দিল রংপুর রাইডার্স। ১৬৮ রানের লক্ষ্যটা ২৮ বল ও ৮ উইকেট হাতে রেখে অনায়াসেই টপকে গেছে তারা। ঝড়ো সেঞ্চুরিতে মাত্র ৫১ বলে ১২৬ রানে অপরাজিত থাকেন ‘ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব’।

দানবীয় তাণ্ডবে চলতি আসরে এক ইনিংসে সর্বাধিক ছক্কার রেকর্ডও গড়েন তিনি। এর আগে এক ইনিংসে ৯টি ছক্কা হাঁকান ঢাকা ডায়নামাইটসের অপর ক্যারিবয়ি ওপেনার এভিন লুইস। এর আগে চার বাউন্ডারি ও পাঁচ ছক্কায় ২৩ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেন ক্রিস গেইল। চলতি আসরে দুটি অর্ধশতক রয়েছে গেইলের।

তবে অল্পের জন্য নিজের রেকর্ড ভেঙে বিপিএলের দ্রুততম সেঞ্চুরির কীর্তি গড়তে পারেননি গেইল। তিন অঙ্কের ঘরে যেতে ৪৫টি বল খেলেন। ২০১২ সালে মিরপুরেই বরিশাল বার্নর্সের হয়ে সিলেট রয়্যালসের বিপক্ষে ৪৪ বলে শতক হাঁকিয়েছিলেন।

বিপিএলে এটি গেইলের চতুর্থ শতক। আর কারোরই একাধিক সেঞ্চুরির অর্জন নেই। তার হাত ধরে পঞ্চম আসরে প্রথম সেঞ্চুরি দেখলো দর্শকরা। ৫১ বলের বিস্ফোরক ইনিংসটিতে ছিল ৬টি চার ও ১৪টি ছক্কার মার। গেইলকে সঙ্গ দিয়ে ৩০ রানে অপরাজিত থাকেন মোহাম্মদ মিঠুন।

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন রংপুর দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। তাই বিপিএলের ‘এলিমিনেটর’ এ ম্যাচে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬ উইকেটে ১৬৭ রান করেছিল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের খুলনা। মিরপুরের উইকেট বলছিল, এই রান কঠিন হবে রংপুরের জন্য।

গেইল যেদিন ব্যাটিং করেন, সেদিন বধ্যভূমিতেই রানের ফোয়ারা ছোটাতে পারেন। ৫১ বলে অপরাজিত ১২৬ রানের ইনিংস খেলে ২৮ বল আর ৮ উইকেট হাতে রেখেই জেতালেন রংপুর রাইডার্সকে। এই জয়ে রংপুর চলে গেল দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে। বিদায় নিল খুলনা। উল্লেখ্য, খুলনার ব্যাটিংক্রমের শুরুর সাত ব্যাটসম্যানই পৌঁছেন ব্যক্তিগত দুই অঙ্কের রানের কোঠায়।