পোপের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ

নিউজ ডেস্ক: ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর বারিধারায় ভ্যাটিকান দূতাবাসে গিয়ে পোপের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন তিনি। খবর বাসসের

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, পোপ ও প্রধানমন্ত্রী শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর ২০ মিনিট আলাপ-আলোচনা করেন।

পোপ ফ্রান্সিসকে স্যুভেনির হিসেবে একটি নৌকা উপহার দেন শেখ হাসিনা।

বৈঠক শেষে পোপের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী তার ছোট বোন শেখ রেহানাকে পরিচয় করিয়ে দেন। এ সময় শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ও তার স্ত্রী পেপি সিদ্দিক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকালে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রায় ৮০ হাজার ভক্তের অংশগ্রহণে এক বিশেষ প্রার্থনাসভায় পৌরহিত্য করেন পোপ ফ্রান্সিস। প্রার্থনা ও বিশ্বাসের মধ্য দিয়ে এসময় সবাইকে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান ক্যাথলিক প্রধান ধর্মগুরু। ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন দেশের খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিকরাও এতে যোগ দেন।

বিকেলে রাজধানীর কাকরাইলের রমনা ক্যাথিড্রালে যান পোপ ফ্রান্সিস। সেখানে আর্চবিশপ হাউজে তিনি বিশপদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এরপর পোপ ফ্রান্সিস সেখানে একটি আন্তঃধর্মীয় সভায় অংশ নেন।

তিন দিনের সফরে বৃহস্পতিবার বিকেলে মিয়ানমার থেকে ঢাকা পৌঁছান পোপ ফ্রান্সিস। বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

সফরের শেষ দিন শনিবার সকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে মাদার টেরিজা হাউজ পরিদর্শন করবেন ক্যাথলিক প্রধান ধর্মগুরু। পরে তিনি তেজগাঁও হলি রোজারিও চার্চে খ্রিস্টান যাজক, ধর্মগুরু ও ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে চার্চের কবরস্থান পরিদর্শন করবেন। দুপুরে নটর ডেম কলেজে তরুণদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন পোপ ফ্রান্সিস।

এরপর বিকেল ৫টায় ঢাকা ত্যাগ করবেন ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। শাহজালাল বিমানবন্দরে তাকে বিদায় জানাবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৩ মার্চ ২৬৬তম পোপ নির্বাচিত হন ফ্রান্সিস।