সিআইএস-বিসিসিআই ও সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বারের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক সম্পন্ন

নিউজ ডেস্ক : রাশিয়ায় সফররত কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেটস্-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ব্যবসায় প্রতিনিধি দলের সাথে সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রতিনিধি দলের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল রাশিয়ার স্থানীয় সময় সকাল ১১:৩০ মিনিটে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সিআইএস-বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট, এ.এম গ্রুপের চেয়ারম্যান ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক মোঃ হাবীব উল্লাহ ডনের নেতৃত্বে অংশগ্রহণ করেন আইযা এক্সপোর্ট ইমপোর্ট লিমিটেড এবং নিউজএক্সপ্রেসবিডি.কমের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও সিআইএস-বিসিসিআইয়ের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট লোকমান হোসেন আকাশ, নিউজএক্সপ্রেসবিডি.কমের উপদেষ্টা এবং রাজ ইন্টারন্যাশনাল ও সিআইএস-বিসিসিআইয়ের পরিচালক মাহবুব ইসলাম রুনু, অমিকন গ্রুপের চেয়ারম্যান ও সিআইএস-বিসিসিআইয়ের পরিচালক ইঞ্জিঃ মেহেদী হাসান এবং আমির ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিআইএস-বিসিসিআইয়ের সদস্য মোঃ ফরহাদ আমির।

দু’দেশের উভয় চেম্বারের মধ্যকার বৈঠকটি অত্যন্ত সফল ও ফলপ্রসূ হয়েছে বলে নিউজএক্সপ্রেসবিডি.কমকে জানিয়েছেন চেম্বারের পরিচালক মাহবুব ইসলাম রুনু।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, রাশিয়ার সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক স্বাধীনতার পর থেকেই। এখানে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের জন্য অপার সম্ভাবনা বিদ্যমান। আর এই সম্ভাবনাকে বাস্তবায়ন করার জন্য সিআইএস-বিসিসিআই চেম্বারের পক্ষ থেকে সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বারের সাথে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ও ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে এর সূত্র ধরে দু’দেশের মধ্যকার ব্যবসায়ীক দুরুত্ব আরো কমে আসবে। বাংলাদেশ থেকে সামুদ্রিক খাদ্যদ্রব্য, পাটজাত পণ্য, চা, চামড়াজাত পণ্য, তৈরি পোশাক রপ্তানির ও রাশিয়া থেকে যন্ত্রপাতি, বিভিন্ন ঔষধিপণ্য আমদানির দ্বার উন্মোচন হবে।

তারা জানান, রাশিয়ার সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সুযোগ-সুবিধাকে আরো গতিশীল করার জন্য বিদ্যমান বাধা যেমন যোগাযোগ ব্যবস্থার অপ্রতুলতা, ব্যাংকিং অসুবিধাসহ বেশ কিছু সমস্যাবলি নিয়ে বৈঠকে আলোচনা করা হয়েছে।

আশা করা যাচ্ছে, খুব শীঘ্রই দু’দেশের মধ্যকার বিদ্যমান সমস্যাবলী দূরীভূত হবে। বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সহজ শর্তে রাশিয়ায় ব্যবসায়-বাণিজ্য করতে পারবে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের ওপর নির্ভরশীলতা কমবে। দেশের ব্যবসায়ীরা রাশিয়ার সাথে ব্যবসায় করতে উৎসাহ পাবে।

বৈঠকে সিআইএস-বিসিসিআই চেম্বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট লোকমান হোসেন আকাশ প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের চিত্র ও তথ্য তুলে ধরেন।

এসময় তিনি দু’দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে যে সকল প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন সে সম্পর্কে তার বক্তব্য ও মতামত তুলে ধরেন।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের মতের সাথে একমত পোষণ করেন সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট একাতেরিনা লেভেদেভা।

তিনি জানান, দু’দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে তার চেম্বার সিআইএস-বিসিসিআইয়ের সাথে এক হয়ে কাজ করতে আগ্রহী।

বৈঠক শেষে সেন্ট পিটার্সবার্গ চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট একাতেরিনা লেভেদেভাকে ক্রেস্ট তুলে দেন সিআইএস-বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট হাবীব উল্লাহ ডন।

প্রসঙ্গত, রাশিয়াসহ সিআইএসভুক্ত এগারটি দেশের (আরমেনিয়া, আজারবাইজান, কাজাখস্তান, কিরগিস্তান, মালদোভা, উজবেকিস্তান, বেলারুশ, ইউক্রেন, তাজিকস্তান, তুর্কমেনিস্তান) সাথে বাণিজ্যিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে জন্মলগ্ন থেকেই কাজ করছে সিআইএস-বিসিসিআই।

এই ধারাকে অব্যহত রাখতে গত জুন মাসে চেম্বারের প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েই বেশ কিছু কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন হাবীব উল্লাহ ডন। এরই মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার ইগনাতোভ, এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট মোঃ শফিকুল ইসলাম মহিউদ্দীন ও বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে রাশিয়াসহ সিআইএসভুক্ত দেশের সাথে ব্যবসায়ীক সম্ভবনার বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনায় অংশ নিয়েছেন তিনি।

এছাড়াও সিআইএস-বিসিসিআই চেম্বারের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যবসায়কে গতিশীল করতে বেশ কিছু ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে নিরলসভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি।