সাদা শকুন

নিউজ ডেস্ক: সাদা শকুন। আইইউসিএন-এর লাল তালিকায় থাকলেও পঞ্চাশ বছর আগে বাংলাদেশে দেখা গেছে। পক্ষীবিদদের ধারণা, পশ্চিমবঙ্গ থেকে কখনও কখনও পরিযায়ী হয়ে এরা বাংলাদেশে এলেও আসতে পারে। তবে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকায় এদের দেখা যায়। সাদা শকুন অন্যসব প্রজাতির মতো দেখতে নয়।

ঈগলাকৃতির চেহারায় দেখতে বেশ সুশ্রী। হলুদ-কমলা রঙের চামড়ায় আবৃত মুখমণ্ডল। মাথায় কদম ফুলের মতো খাড়া সাদা পালক।

ঘাড়, গলা, বুক ও পিঠ সাদা। ডানার প্রান্ত পালক কালো। সাদা লেজের ডগা ত্রিকোণাকৃতির। ওড়ার পালক কালো। উপরের ঠোঁট বড়শির মতো বাঁকানো, সামনের দিকে কালো, বাদবাকি কমলা-হলুদ। চোখের বলয় হলুদ, তারা বাদামি। পা ও পায়ের পাতা গোলাপি। অপ্রাপ্তবয়স্কর মুখ ধূসর। দেখতে কালচে-বাদামি। দৈর্ঘ্যে এরা ৫৮ থেকে ৭০ সেন্টিমিটার।

ওজন ১ হাজার ৬০০ থেকে ২ হাজার ২০০ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষের চেহারায় তেমন কোনো পার্থক্য নেই। বালিয়াড়ি সাদা শকুনের খুব পছন্দের জায়গা। তবে খোলা মাঠেও এরা বিচরণ করে থাকে। দলবদ্ধভাবে খাদ্যের সন্ধানে বের হয়। সব ধরনের মৃতদেহ খেয়ে এরা পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে গরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।