পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে নেয়ার সময় ঠিকাদারকে ছুরিকাঘাত

ময়মনসিংহ সংবাদদাতা: ময়মনসিংহের গৌরীপুরে বুধবার(২২নভেম্বর) সকালে উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের খালিজুরী গ্রামে সাইদুল ইসলাম নামক জনৈক পল্লী বিদ্যুতের ঠিকাদারকে ছুরিকাঘাত করে আহত করার ঘটনা ঘটেছে। আহত ঠিকাদার সাইদুল ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

এই ঘটনায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ খালিজুড়ী কৃষক সমবায় সমিতির ম্যানেজার মোঃ আল-আমিনকে গ্রেফতার করেছে। স্থানীয়রা জানান গ্রামে পল্লী বিদ্যুত্যের খুঁটি স্থাপন না করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার সময় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, খালিজুরি গ্রামে পল্লী বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য ১৭টি বৈদ্যুতিক খুঁটির অনুমোদন ও ১৭টি খুটিই গ্রামে আনা হয়। কিন্তু ঠিকাদার ১৫টি খুঁটি স্থাপন করে কাজ সম্পন্ন করে। বুধবার সকালে ঠিকাদার সাইদুল খালিজুরি স্কুল মাঠ থেকে বিদ্যুতের ৩টি খুঁটি সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসী বাঁধা প্রদান করে।

এসময় বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে আল-আমিন নামের এক যুবক সাইদুলকে গলায় ছুরিকাঘাত করে। এ ঘটনায় সাইদুল বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ আল-আমিনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত আল-আমিন বলেন, গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য ১৭টি খুঁটির অনুমোদন থাকলেও ঠিকাদার ১৫টি খুঁটি স্থাপন করে। এতে করে কৃষকদের সেচের সমস্যা হওয়ার শঙ্কা দেখা দেয়। তাই খুঁটি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শম্ভুগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার, সাইদুল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তার ওপর হামলার প্রতিবাদে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের শম্ভুগঞ্জে আধাঘন্টা সড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী। খুঁটির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য যে কয়টা খুঁটি দরকার তা স্থাপন করা হয়। বাকি খুঁটি নিয়ে আসা হয়।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার আহমদ মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলার তদন্ত চলেছে। গ্রেফতারকৃত আল-আমিনকে (আজ) বৃহস্পতিবার কোর্টে প্রেরণ করা হবে।

প্রিন্স, ঢাকা