জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা মানব পাচার সম্ভাব্য শিকার: মোমেন

বাপসনিউজ: গত ২১ নভেম্বর “মিয়ানমার সংকটের স্থায়ী সমাধানই জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মানব পাচারের সম্ভাব্য শিকার হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারে” -আজ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ‘সংঘাতময় পরিস্থিতিতে মানব পাচার’ বিষয়ক এক উন্মুক্ত মিনিস্টিরিয়াল বিতর্কে বক্তৃতা প্রদানকালে একথা বলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মর্মভেদী নির্যাতনের কাহিনী, হত্যা ও শোষণ, ডিঙ্গি নৌকায় ভেসে সমুদ্র পাড়ি দিতে গিয়ে শত শত প্রাণহানির ঘটনাসহ ভয়াবহ মানবিক পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন, “এসকল ঘটনা মানবপাচারকারী ও সংঘবদ্ধ অপরাধ চক্রগুলোর অপরাধ সংঘটনের ক্ষেত্রকে অবারিত করেছে”। রাখাইন প্রদেশ থেকে পালিয়ে আসা বিপুল সংখ্যক নারী ও শিশুর মধ্যে অনেকেই চোরাকারবারী ও মানবপাচারকারীদের সম্ভাব্য শিকারে পরিণত হতে পারে মর্মে তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

মানবপাচারকারী ও সংঘবদ্ধ অপরাধ চক্রগুলোর প্রতি তী² নজরদারী বজায় রাখতে বাংলাদেশের সীমান্ত ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে মর্মে রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ, ইউএন অফিস অন ড্রাগস্ এন্ড ক্রাইম এর এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর ইউরি ফেডোটভ, জাতিসংঘের মানব পাচার বিষয়ক বিশেষ র‌্যাপোর্টিয়ার মিস মারিয়া গ্রাজিয়া জিয়ামমারিনারো এবং আফ্রিকান ইউনিয়নের শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ক কমিশনার ইসমাইল চেরগুই এসভায় বক্তৃতা প্রদান করেন। তাঁরা সকলে ‘সংঘাতময় পরিস্থিতিতে মানব পাচার’ বিষয়টিকে এ সময়ের সবচেয়ে বড় মানবাধিকার সঙ্কট বলে উল্লেখ করেন।