প্রথম পরীক্ষায় টিকে গেছেন রকসি

কোচবিহীন শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ৩-০ গোলে হারিয়েছিল মোহামেডানকে। নতুন কোচ মাহবুব হোসেন রকসিকে নিয়োগ দেয়ার পর কাল বিকালে শেখ জামাল ৩-০ গোলে বিজেএমসিকে হারিয়েছে। পার্থক্যটা কি। কোচ ছাড়া যা হয়েছিল কোচ নিয়েও তাই হলো তাহলে তো কোচ ছাড়াই ভালো। প্রেসবক্সের এমন রসাত্মক ফিসাফিসানি মাঠের ডাগ আউটে রকসির কান পর্যন্ত পৌঁছায়নি। পৌঁছালেই বা কি। রকসি প্রথম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন এটাই তার কাছে সবচেয়ে বড় ব্যাপার। কারণ শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব দেশের একমাত্র ফুটবল সংগঠন, যেখানে কোচ সবসময় হট সিটে থাকেন।

দলের নাইজেরিয়ান কোচ যোসেফ আফুসি না বলে চলে যাওয়ার কারণে মুহূর্তেই নতুন কোচের খোঁজ পড়ল। মনজুর কাদের রকসির উপর আস্থা রাখলেন। এতে ফুটবল অঙ্গনে কানাকানি হলো। রকসিকে কেন? যার বড় দলকে তালিম দেবার অভিজ্ঞতা নেই। শেখ জামালের মতো বড় দল সেভেন সেভেন সেভেন বোয়িং বিমানের ককপিটে তুলে দেয়া হলো জুনিয়র ফুটবলারদের কোচ রকসির মতো পাইলটকে। প্রথম ম্যাচে আশঙ্কা ছিল শেখ জামালের ললাটে করুণ বাজে কিছু ঘটে না।

দ্বিতীয়ার্ধে বদলে গেল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। ৩ গোল করে ম্যাচের সহজ জয়টা তুলে নিল। ১৩ খেলায় ৯ জয়ে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে শেখ জামাল। বিজেএমসি ১৩ খেলায় ১৬ পয়েন্ট নিয়ে ৭ নম্বরে রয়েছে।

৫২ মিনিটে ডিফেন্ডার খান মোঃ তাঁরার বল পেয়ে নাইজেরিয়ান রাফায়েল ডান পায়ের আলতো ছোঁয়া বিজেএমসির অধিনায়ক গোলকিপার আরিফুজ্জামান হিমেলকে ফাঁকি দিয়ে জালে ফেলেন ১-০। ১০ মিনিট ব্যবধানে আবারো এই ফুটবলার রাফায়েল গাম্বিয়ান সলোমন কিংয়ের ক্রসের বলটাকে বিজেএমসির জালে ফেলেন ২-০। হ্যাটট্রিকের আশায় থাকলেও এই রাফায়েল হ্যাটট্রিকের খাতায় নামটা লেখাতে পারলেন না। সুযোগটা নিতে পারলেন না। ৮৩ মিনিটে গাম্বিয়ান সলোমন কিং বিজেএমসির শিমুলের ছেলেমানুষি ভুলে বল নিয়ে গোলকিপার হিমেলের মাথার উপর দিয়ে জালে পাঠান ৩-০। হ্যাটট্রিক না পাওয়ায় অসন্তুষ্ট না রাফায়েল। দল জিতেছে তাতেই খুশি।

আজকের খেলা

আরামবাগ ও সাইফ স্পোর্টিং এবং মুক্তিযোদ্ধা ও রহমতগঞ্জ। (৪টা ৩০ ও ৬টা ৪৫, বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম)।