শ্রমিকদের আবাসন সমস্যা নিরসনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক: সাভারের চামড়া শিল্পনগরীতে শ্রমিকদের আবাসন সমস্যা নিরসনে নতুন প্রকল্প গ্রহণের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেইসাথে দ্রুত বর্জ্য শোধনাগার চালুর জন্যও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিয়েছে তিনি। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠক শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ব্যয় না বাড়িয়ে চামড়া শিল্পনগরী স্থাপন প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৯ সাল পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ খাতে এগিয়ে আসতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সরকার যে একশটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে এরমধ্যে চামড়া শিল্পের জন্য একটি অঞ্চল করার বিষয়েও তিনি নির্দেশনা দিয়েছেন।

শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ৪ হাজার ৯৭৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

একনেক সভায় চামড়া শিল্পনগরী প্রকল্পের ৩য় সংশোনীর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা। সভায় জানানো হয়, প্রকল্পটি ২০০৩ থেকে ২০০৫ সালের মধ্যে ১৭৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়নের লক্ষ্য ছিল। সেসময় প্রকল্প সাহায্য না পাওয়ায় সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ৫৪৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১০ মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পটির ১ম সংশোধনী অনুমোদন করা হয়েছিলা এরপর সময়মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজ যেমন পিইটিপি, ডাম্পিং ইয়ার্ড, পানি উত্তোলন, পরিশোধন ও সরবরাহ ব্যবস্থার কাজ সমাপ্ত করতে না পারায় এর মেয়াদ আরো দুই দফা বাড়ানো হলো। সভায় জানানো হয়, চামড়া শিল্পনগরীতে স্থাপিত ট্যানারি শিল্পে যথাযথ ভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা হবে। আলাদাভাবে বর্জ্য সংগ্রহ করে এর মাধ্যমে কম্পোস্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে।

একনেক সভায় ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন (২য় পর্যায়) প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৮৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। এতে ৮৫৮ কোটি ৮৫ লাখ টাকা দিচ্ছে জাইকা। প্রকল্পটি চলতি অর্থবছর শুরু হয়ে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর বাস্তবায়ন করবে।

সভায় ১ হাজার ২৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ওয়েস্ট জোন এলাকায় বিদ্যুত্ বিতরণ ব্যবস্থার সম্প্রসারণ ও পরিবর্ধন শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ৫৮২ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে দেশের ৮টি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ক্যাম্পাসে ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন এন্ড অ্যালায়েড সায়েন্সেস (ইনমাস) স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এ প্রকল্পটি চলতি অর্থবছর থেকে ২০২০ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে পরমাণু প্রযুক্তি ব্যবহার করে থাইরয়েড, কিডনি, লিভার ও বোন ক্যান্সার প্রভৃতি রোগের ডায়াগনসিস ও চিকিত্সা প্রদান করা হবে।

এছাড়া একনেক সভায় ২৮১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ব্যয়ে টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুর উপজেলার অর্জুনা নামক এলাকাকে যমুনা নদীর ভাঙন হতে রক্ষার্থে নদী তীর সংরক্ষণ প্রকল্প, ২২৫ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে সৈয়দপুর-নীলফামারী মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও মজবুতকরণ প্রকল্প, ২০১ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নওগাঁ-আত্রাই-নাটোর মহাসড়কের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্তকরণ প্রকল্প, ৭৪ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে জয়পুরহাট-আক্কেলপুর-বদলগাছী এবং ক্ষেতলাল-গোপিনাথপুর-আক্কেলপুর জেলা মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও মজবুতকরণ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।