আর্থিক কেলেঙ্কারির নতুন গোপন নথি ফাঁস

নিউজ ডেস্ক: পানামা পেপারসের মতো আর্থিক কেলেঙ্কারির নতুন গোপন নথি ফাঁস হয়েছে; আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে যাকে প্যারাডাইজ পেপারস বলা হচ্ছে।

বিশ্বের ক্ষমতাধর ও অতিধনীরা কিভাবে করস্বর্গ হিসেবে পরিচিত অঞ্চলগুলোতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছেন তা ফাঁস হয়েছে এ পেপারে। ফাঁস হওয়া নতুন তথ্যে যাদের নাম এসেছে তার মধ্যে রয়েছে ব্রিটেনের রাণীর নামও। নাম রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বাণিজ্যমন্ত্রীরও।

পানামা পেপারসের মতো এ নথিগুলোও প্রথমে হাতে পায় জার্মান গণমাধ্যম সুদিউতশে জাইতুং। এরপর তারা নথিগুলো ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টসকে (আইসিআইজে) দেয়। বিশ্বের প্রায় ১০০টি গণমাধ্যম এসব নথি হাতে পেয়েছে।

প্যারাডাইজ পেপারসের বিষয়টি সামনে এসেছে রোববার। রাজনীতিবিদ, দ্বৈতনাগরিক, হাই-নেট-ওয়র্থ ব্যক্তিরা কিভাবে ট্রাস্ট, ফাউন্ডেশন এবং শেল কোম্পানি ব্যবহার করে কর কর্মকর্তাদের হাত থেকে নিজেদের নগদ অর্থ বাঁচিয়েছেন অথবা লেনদেনের তথ্য গোপন করেছেন তাও উঠে এসেছে এই প্যারাডাইজ পেপারসে।

এ পেপারে যাদের নাম এসেছে তার মধ্যে অন্যতম রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তার ব্যক্তিগত অর্থের প্রায় ১ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার অফশোর কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ডুশি অব ল্যানসেস্টার নামে একটি কোম্পানির মাধ্যমে রাণী কেইম্যান দ্বীপপুঞ্জ ও বারমুডায় বিনিয়োগ করেছেন। ডুশি সেখানে রাণীর ৫০০ পাউন্ডের সম্পত্তি নিয়ে ব্যবসা করে রাণীর হাতে মুনাফা তুলে দেয়।

রাণীর বিনিয়োগের এ বিষয়টি মোটেও অবৈধ নয়, এখানে এমন কোনো ইঙ্গিতও নেই তিনি কর ফাঁকি দিচ্ছেন। তবে প্রশ্ন উঠতেই পারে অফশোর কোম্পানিতে রাণীর বিনিয়োগ করা উচিৎ কি না?

গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সহযোগিতা করেছিলেন উইলবার রস। পরে ক্ষমতায় এসে রসকেই তাকেই বাণিজ্যমন্ত্রী নিয়োগ করেন ট্রাম্প।

নতুন ফাঁস হওয়া গোপন নথিতে দেখা যাচ্ছে এই রসের সঙ্গে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক যোগাযোগ রয়েছে, যেটি একটি রুশ কোম্পানির হয়ে তেল-গ্যাস সরবরাহ করে বছরে লাখো ডলার আয় করে। এ ছাড়া রুশ প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার হোল্ডারদের মধ্যে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের জামাতা ও যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা দু’জন ব্যক্তিও রয়েছেন।

এ ছাড়া প্যারাডাইজে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর নামও এসেছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ফাঁস হওয়া নথিগুলোর বেশিরভাগই এসেছে বারমুডাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান অ্যাপলবি থেকে। বিপুল সম্পদের মালিকরা কিভাবে কর না দিয়ে তাদের টাকা নিজেদের হাতেই রাখবেন তার পথ করে দেয় অ্যাপলবি।