জমে উঠেছে বনানীর “কক্সবাজার ফিস মার্কেট”

এখনও ছুটি পেলে বন্ধুদের নিয়ে ছুটে যেতে ইচ্ছা করে পৃথিবীর দীর্ঘতম বালুকাবেলা কক্সবাজারে। সমুদ্রের গর্জন আর পাহাড়ি ঝর্ণার স্নিগ্ধতা আমাকে যতটা বিমোহিত করে তার চেয়েও বেশি টানে মাতাল সমুদ্রের নানা রকম বাহারি মাছের স্বাদ।

লবস্টার, চিংড়ি, রূপচাঁদা, লইটা, ছুরি, লাক্ষা, কোরাল, অক্টোপাস, স্কুইট নাম শুনলেই কেমন যেন জিভে পানি চলে আসে। কিন্তু রোজ রোজ কি আর কক্সবাজার যেয়ে এমন তরতাজা মাছ খাওয়া সম্ভব? কর্মব্যস্ত জীবনে শত ইচ্ছার পরেও চাইলেও যাওয়া হয়ে উঠেনা।

কেমন হত, যদি ঢাকায় বসেও কক্সবাজারের মত তরতাজা সামুদ্রিক মাছের স্বাদ নেওয়া যেত? আমাদের মনে যখন এমন প্রশ্নের উদয় হবে হবে করছে ঠিক ততক্ষণে ঢাকার বনানীতে চালু হয়ে গেছে কক্সবাজার ফিস মার্কেট নামে একটি রেস্তোরাঁর। যেখানে বসে আপনি আমি অনায়াসে কক্সবাজারের নানা রকম মাছের মজাদার সব স্বাদ নিতে পারি।

সামুদ্রিক মাছ মানেই যারা হাজার হাজার টাকা দাম মনে করেন তাদের ধারণা পালটে দিতেই কক্সবাজারের ছেলে পারভেজ আহমেদ তাঁর বন্ধুদের নিয়ে শুরু করেছেন কক্স বাজার ফিস মার্কেটের। তাদের রেস্তরাঁর সকল মাছ নিজেস্ব তত্ত্বাবধানে সরাসরি কক্সবাজার থেকে নিয়ে আসা হয়। সমুদ্রের তীরের নগরী কক্সবাজারে বেড়ে উঠা পারভেজ আহমেদর ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন ছিল সামুদ্রিক মাছ নিয়ে কিছু করার। আর সেই কারনেই ছোটবেলার সেই স্বপ্ন আজও ভুলতে পারেননি। ঢাকায় বনানীর রোড ১২, হাউজ ৭১ ব্লক এইচ যেখানে আগে টেকআউট ছিল সেখানেই চালু করেছেন কক্সবাজার ফিস মার্কেটের

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল ঢাকার অন্যান্য যত সী ফুডের রেস্তোরাঁ আছে তাঁর মধ্যে সবচেয়ে সাশ্রয়ী অথচ মজাদার খাবার এখানে পাওয়া যায়। সম্পূর্ণ নিজস্ব তত্ত্বাবধানে মাছ সংগ্রহ করা হয় বলে মাছের গুনগত মান নিয়ে কোন সংশয় থাকে না। তাছাড়া দীর্ঘ ৮ বছরের অভিজ্ঞ শেফ তাঁর রন্ধনশৈলী দিয়ে সামদ্রিক মাছকে করে তোলেন স্বাদে অমৃত।এখানে হোম ডেলিভারিরও ব্যবস্থা আছে। ঢাকার অসহ্য জ্যাম আপনার সামুদ্রিক মাছের স্বাদ নেওয়া থেকে বঞ্চিত করতে পারবে না। চাইলে ঘরে বসেই ফোন করে খাবার অর্ডার করতে পারেন। এমনকি ফোন করে রেস্টুরেন্টে আপনার সিট টাও বুক করে রাখতে পারেন।

ফিস অ্যান্ড চিপস, হোল ক্র্যাব ফ্রাই, হোল ক্র্যাব গ্রিল, গ্রিল কালামারি, অক্টোপাস গ্রিল, লাইম প্রাউন, সীফুড স্যুপ, হোল অক্টোপাস, গার্লিক গ্রিল লবস্টার,  ফিস স্টেক সহ নানা রকম বাহারি খাবারের আয়োজন আছে এই রেস্তোরাঁয়। আমি নিশ্চিত এই রেস্তরাঁর ছোট্ট ছিমছাম পরিবেশে আর চমৎকার আতিথিয়তা আপনাকে মুগ্ধ করবেই।