দরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষেরা যেন নদীপথে আন্ত:দেশীয় বাণিজ্যের সুফল পান তা নিশ্চিত করতে হবে – ড. আতিউর রহমান

নিজস্ব প্রতিবেদক : “বিবিআইএন উপ-অঞ্চলের দেশগুলোর (বাংলাদেশ-ভূটান-ভারত-নেপাল) মধ্যে নদীপথে বাণিজ্য বাড়ানো গলে তা সামষ্টিক অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জনের ক্ষেত্রে সহায়ক হবে এ বিষয়ে সন্দেহ নেই্। তবে এই বাণিজ্য বৃদ্ধির যথেষ্ট সুফল যেন নদীর আশে পাশে বসবাসকারি দরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষরা বিশেষত চরের মানুষরা পান সেটা আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে”- সম্প্রতি কোলকাতায় নদীপথ বিষয়ক উপ-আঞ্চলিক সংলাপ অধিবেশনে একথা বলেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর এবং উন্নয়ন সমন্বয়ের চেয়ারপারসন ড. আতিউর রহমান। সংলাপ অধিবেশনটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে কাটস ইন্টারন্যাশনাল, উন্নয়ন সমন্বয়, রয়াল সোসাইটি ফর প্রোটেকশন অফ ন্যাচার, এবং সাউথ এশিয়া ওয়াচ অন ট্রেড, ইকোনমিকস এন্ড এনভায়রনমেন্ট। সংলাপ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- কোলকাতায় ব্রিটিশ ডেপুটি হাইকমিশনার ব্রুস বাকনেল, কোলকাতায় জাপান কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল মাসায়ুকি তাগা, ভারতে দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ সাগর প্রাসাই, এবং ডিএফআইডি এশিয়া রিজিওনাল টিমের ক্লাইমেট এন্ড এনভায়রনমেন্ট এডভাইজর শান্তনু মিত্রা। কাটস ইন্টারন্যাশনালের নির্বাহি পরিচালক বিপুল চ্যাটার্জি সংলাপ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

২০১৬ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে স্বাক্ষরিত প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট এন্ড ট্রেড এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে আন্ত:দেশীয় বাণিজ্য বৃদ্ধির ক্ষেত্রে আশার সঞ্চার করেছে। তবে এক্ষেত্রে নদীপথের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিপুল বিনিয়োগ, নদীপথগুলোর নাব্যতা বজায় রাখা এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার মতো চ্যালেঞ্জগুলোও আমাদের মাথায় রাখতে হবে বলে ড. আতিউর অভিমত ব্যক্ত করেন। তাঁর মতে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি এক্ষেত্রে বেসরকারি খাতেরও এগিয়ে আসা দরকার। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের রেল অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য ভারতের পক্ষ থেকে যে ঋণ দেয়া হয়েছে, নদীপথের অবকাঠামো উন্নয়ন ও সংরক্ষণের জন্যও একই ধরনের ঋণ সুবিধা দেয়া যেতে পারে।

বিবিআইএন উপ-অঞ্চলে নদীপথগুলোর যথাযথ ব্যবস্থাপনা এবং নদীপথে আন্ত:দেশীয় বাণিজ্যের প্রসার ঘটানোর জন্য দেশগুলোর মধ্যে সংলাপ ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের গুরুত্বের কথা বলে ড. আতিউর তাঁর বক্তব্য শেষ করেন।