বিদ্যমান সীমানায় ভোট চায় জাসদ

নিউজ ডেস্ক: নির্বাচন কমিশনের ধারাবাহিক সংলাপে রোববার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ (ইনু) ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) পৃথকভাবে অংশ নিয়ে বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেছে।

একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আয়োজিত এ সংলাপে জাসদের পক্ষ থেকে বিদ্যমান সংসদীয় সীমানা বহাল রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।

অন্যদিকে জেএসডি ভোটের আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি করেছে। এ ছাড়া রোহিঙ্গা সংকটের কারণে সংসদ নির্বাচনের সূচি যাতে পাল্টে না যায়, সেজন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করতে ইসিকে পরামর্শ দিয়েছে জেএসডি।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অনুষ্ঠিত এ সংলাপে সভাপতিত্ব করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে.এম. নুরুল হুদা। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে ১৪ দলের অন্যতম শরিক দল জাসদ ও সাবেক মন্ত্রী আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বে জেএসডির প্রতিনিধি দল এতে অংশ নেয়।

জাসদের পক্ষ থেকে ১৭ দফা সুপারিশ তুলে ধরে বলা হয়, নতুন করে আদমশুমারি প্রতিবেদন না হওয়ায় একাদশ সংসদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে দশম সংসদীয় আসনের সীমানা বহাল রাখতে হবে। দলটি থেকে সুপারিশ করা হয়, আদালতের রায়ে নিবন্ধন হারানো জামায়াতে ইসলামীর কেউ যেন বিএনপি বা অন্য দলের হয়ে অথবা স্বাতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোটে অংশ নিতে না পারেন। এ বিষয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করার সুপারিশ করেন তারা।

জাসদের ২০ সদস্যের প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে বলা হয়, নিজ দলের প্রতীক ‘মশাল’ ও শরিক দলের প্রতীক ‘নৌকা’ মার্কা নিয়ে বর্তমান সংসদে জাসদের ছয়জন এমপি থাকলেও তাদের মধ্যে বিভাজন রয়েছে। তাই দলটির পক্ষ থেকে দলছুট সংসদ সদস্যদের ‘জাসদে’র নামের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূণ কোনো নামে নতুন দল নিবন্ধনের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপেরও সুপারিশ করা হয়।

উল্লেখ্য, ইসিতে নিবন্ধিত জাসদে ভাঙনের পর শরীফ নূরুল আম্বিয়া, সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধান ও সংসদ সদস্য মঈনউদ্দিন খান বাদলের নেতৃত্বে জাসদ নামে আরেকটি দল সক্রিয় রয়েছে। আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বাধীন জেএসডিও একসময় জাসদের অন্তর্ভুক্ত ছিল। পরে জাসদ ও জেএসডি পৃথক নামে দল দুটি ইসিতে নিবন্ধিত হয়।

জাসদের অন্য প্রস্তাবগুলোর মধ্যে রয়েছে- নিবন্ধিত দলকে ব্যয় নির্বাহে ও প্রচারণায় নিয়মিত অনুদান, সর্বোচ্চ প্রযুক্তি ইভিএম ব্যবহার, দলের অনুদান আয়কর মুক্ত করা, অনলাইনে মনোনয়নের ব্যবস্থা, ভোটে কালো টাকার ব্যবহারে প্রার্থিতা বাতিল, স্বাতন্ত্র প্রার্থিতায় শতকরা এক ভাগ ভোটারের সমর্থন তালিকার শর্ত বাতিল, জামানত ২০ হাজার টাকা থেকে কমিয়ে ১০ হাজার টাকা করা ইত্যাদি।

ভোটের আগে সংসদ ভেঙে দেওয়ার প্রস্তাব জেএসডির: একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের সুপারিশ করেছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি)। দলটির সভাপতি আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে সংলাপে ১৪ দফা প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। এতে উপ-আঞ্চলিক জোট গঠনের কূটনীতি জোরদারের এবং দলের অঙ্গ সংগঠন না থাকার বিধান কার্যকরের প্রস্তাবও করা হয়েছে।