বাংলাদেশ-ভারতের ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি সই

নিউজ ডেস্ক:  বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে তৃতীয় ক্রেডিট লাইনের বাস্তবায়নে সাড়ে চার শ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। টাকার অঙ্কে যা প্রায় ৩৬ হাজার কোটি টাকা।

আজ বুধবার বেলা ১১টায় সচিবালয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির উপস্থিতিতে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সচিব কাজী শফিকুল আজম ও ভারতের এক্সিম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডেভিড রাজ কুইনা নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

বাংলাদেশ-ভারতের অর্থমন্ত্রীর উপস্থিতিতে এ সময় দুই দেশের মধ্যে চুক্তি সংক্রান্ত যৌথ ইন্টারপ্রেটিভ নোটও স্বাক্ষরিত হয়।

এর আগে সকাল ১০টায় সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। সকাল ৭টায় তিনি ঢাকেশ্বরী মন্দির পরিদর্শনে যান।

গত এপ্রিল মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরকালে বাংলাদেশের জন্য ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ভারতীয় ক্রেডিট লাইনের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ নিয়ে গত ছয় বছরে বাংলাদেশকে ভারতের দেওয়া সর্বমোট ক্রেডিট লাইনের পরিমাণ দাঁড়াবে আট বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তৃতীয় ক্রেডিট লাইন চুক্তি স্বাক্ষরে বাংলাদেশের অগ্রাধিকারভিত্তিক কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো প্রকল্প বাস্তবায়নে সক্ষমতা অর্জন করবে।

বুধবার ভারতের অর্থমন্ত্রী জেটলি বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে সঙ্গে নিয়ে ভারতীয় হাইকমিশনের পক্ষে ভারতীয় স্টেট ব্যাংক পরিচালিত ভিসা সার্ভিসে নগদ অর্থ ছাড়া লেনদেনের নতুন প্রকল্পের যৌথভাবে উদ্বোধন করবেন। দুই মন্ত্রী ভারতীয় এক্সিম ব্যাংকের ঢাকা প্রতিনিধি অফিসেরও উদ্বোধন করবেন।

তিনদিনের সফর শেষে আগামীকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা ত্যাগ করবেন অরুণ জেটলি।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার তিন দিনের সফরে ঢাকা পৌঁছান ভারতের অর্থমন্ত্রী। বিকাল ৩টায় ভারতের একটি বিশেষ বিমানে ঢাকার কুর্মিটোলায় বিমানবাহিনীর ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে পৌঁছান তিনি। তাকে স্বাগত জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। পরে বিমানবন্দর থেকে অরুণ জেটলিকে সোনারগাঁও হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সফরকালে তিনি এ হোটেলেই অবস্থান করছেন।